স্টুডেন্ট অবস্থায় জার্মানিতে স্পাউস নিয়ে আসা কিছুটা ডিফিকাল্ট। ব্লু কার্ড/সিটিজেনশিপ থাকলে ১/২ মাসের মধ্যেই স্পাউস আনা যায় কিন্তু স্টুডেন্ট অবস্থায় সম্ভবত একটু বেশী অপেক্ষা করা লাগে।যাদের অপেক্ষা কম করা লাগছে তারা লাকি।আমি এতো লাকি ছিলাম না। আমার ওয়াইফের স্পাউস ভিসা পেতে প্রায় ৯ মাস অপেক্ষা করা লাগছে।আমার এক্সপেরিয়েন্স শেয়ার করি,স্টুডেন্ট কিন্তু ম্যারিড যাদের স্পাউস এখনো বাংলাদেশে তাদের কাজে লাগতে পারে।
আমার ওয়াইফ ইন্টারভিউ দিয়েছিলো ২০১৮ এর জুলাই এর ২৪ তারিখ, ভ্যারিফিকেশনে গিয়েছিলো আগষ্ট এর প্রথম সপ্তাহে,আমার বাসা আমার ওয়াইফের বাসা দুই জায়গাতেই গিয়েছিলো।আমাকে লোকাল আউসল্যান্ডারবেহোর্ডে থেকে ডকুমেন্ট সাবমিট করার জন্য চিঠি পাঠায় অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে (ডকুমেন্টস কি কি লাগে তা এম্বেসির চেকলিস্টেই পাবেন)

আমি সাথে সাথেই পাঠিয়ে দেই।তারপর আর কোন খোজ নেই।আমরা ভুলেও গিয়েছিলাম ফ্যামিলি রিইউনিয়ন নামে কোন ভিসার জন্য আমরা এপ্লাই করেছিলাম। আমার ওয়াইফ আয়েল্টস দিয়ে সামনের উইন্টারে স্টুডেন্ট ভিসায় আসার জন্য অনেকগুলা ভার্সিটিতে এপ্লাইও করে দিয়েছিলো।তখন হঠাৎ এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে আমার কাছে একটা মেইল আসে আমি আগে যে চাকরির কন্ট্রাক্টগুলা দেখিয়েছিলাম সেগুলার মেয়াদ ডিসেম্বরে শেষ হয়ে গেছে,নতুন করে জব কন্ট্রাক্ট এবং ব্যাংক স্টেইটমেন্ট সাবমিট করতে।আমি তার ৩/৪ দিন পরই ডকুমেন্টস সাবমিট করে দিলাম। তারপর ফাইনালি এপ্রিলের ১৫ তারিখ আমার ওয়াইফের কাছে মেইল আসলো যে পাসপোর্ট এবং ট্রাভেল ইন্সুরেন্স নিয়ে এম্বেসিতে যেতে। এপ্রিলের ১৯ তারিখের দিকে আমার ওয়াইফ ভিসা পেয়ে যায়। 
এনিওয়ে এটা বিশাল লম্বা এবং বিরক্তিকর জার্নি ছিলো।তারচেয়ে স্টুডেন্ট ভিসায় স্পাউসকে নিয়ে আসা তুলনামূলক সহজ আমি মনে করি।

আরেকটা বিষয়,এম্বেসির একটা রুলস আছে যে স্টুডেন্টদের ক্ষেত্রে জার্মানি আসার আগে বিয়ে করে আসা লাগে। ভিসা অফিসার ইন্টারভিউ এর সময় বারবার আমার বিয়ের ডেইট এবং আমার ডিপারচার এর ডেইট চেক করছিলো,ডাবল সিউর হয়েছে যে বিয়ে কি আমার জার্মানিতে ঢুকার আগে হয়েছে না পরে হয়েছে। তবে ২ বছরের বেশী রেসিডেন্স পারমিট থাকলে সম্ভবত এই রুলস শিথিলযোগ্য। শুভকামনা সবাইকে