আমি এসেছি প্রায় ৫ মাস। এর মাঝে আমার মা ও ঘুরে গেলেন স্বপ্নের ইউরোপ থেকে। কিভাবে? তাই জানাব আজ আপনাদের।

বিদেশে এসে মা কে নিয়ে আসা যেন স্বপ্নের মত। যাক নিজের অনুভুতি ব্যাক্ত না করে কিভাবে মা কে নিয়ে আসলাম তা-ই বিস্তারিত জানাই। আমার মা এসেছিলেন সেঞ্জেন ভিসায়। মেয়াদ ছিল ৩৯ দিন। আরও বলে রাখি আমার বোন পিএইচডি করছে Potsdam University তে। আরেকটা গোপন কথা বলি ওনারা মানে জার্মান এম্বাসির লোকেরা পিএইচডি দের সেরাম সম্মান করে :)।

প্রথমেই চলে যাই প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র কী কী লাগবে? Family reunion visa এর জন্য কী কী লাগবে তা ওয়েবসাইটে সুস্পষ্টভাবে লেখা আছে। জার্মান এম্বাসির সেঞ্জেন ভিসা রিকয়ারমেন্ট ছাড়া  অন্য আর যে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র জমা দিয়েছিল তা হলঃ

১।আমাদের দুই বোনের সিটি রেজিস্ট্রেশন পেপার ।

২। আমার বোনের পিএইচডির কন্ট্রাক্ট পেপার । (আপনি যদি পিএইচডি এর ছাত্র না হন তবে আপনার প্যারেন্টের নিজের ব্যাংক স্ট্যা্টমেন্ট পেপার দেয়াটাই উচিৎ হবে। একটু মাথায় রাখবেন এম্বাসি ফেস করার সময় যেন ৪ লাখ টাকার মত থাকে, আর সাথে আপনার ব্লক একাউন্টের পেপার দিলেও কোন ক্ষতি নাই।)

৩। আমার বোনের ব্যাংক স্ট্যা্টমেন্ট যদিও আমার মা তাঁর নিজের ব্যাংক স্ট্যা্টমেন্ট ও জমা দিয়েছিলেন সম্ভবত আম্মার একাউণ্টে ৪ লাখ টাকা ক্যাশ ছিল এবং বিগত তিন মাসের টাকার অংক ও কিন্তু খারাপ ছিল না।

৪। আমার বোনের হাউজিং কন্ট্রাক্ট পেপার (একটু বড় ঘর হলে সেফ আর কি!)

৫। আমার মায়ের ও আমাদের দুইজনেরই বার্থ সার্টিফিকেট ।

৬। আমাদের পাসপোর্ট এবং ভিসার কপি।


এখানে আমার অভিজ্ঞতার কথা বললাম। তবে অবশ্যই জার্মান এমব্যাসির ওয়েবসাইট থেকে সাম্প্রতিকতম তথ্য দেখে নেবেন। লিংকঃ এখানে



ইন্টারভিউতে ভিসা অফিসার (ভিও) তেমন কিছুই জিগায় নাই। খালি জিগাইছে যাইয়া কি করবেন?

আম্মার উত্তর ছিলঃ এখন একটু চলতে ফিরতে পারি, আরও বুড়ি হইলে যাইয়া কি করুম?

তারপর কাগজপত্রগুলা উলটায়া পালটায়া দেইখা কইসে টাকা (৬০ ইউরো) জমা দিয়া আসেন।

টাকা জমার স্লিপ নিয়ে দেখা করলে বলছে ৫ দিন পর আসবেন।

সময় মত ৫ দিন পর গেলে ভিসা সমেত পাসপোর্ট ফেরত দিছে।


এইবার কিছু ফ্রি উপদেশ দেই। ভিসার ক্ষেত্রে কেস টু কেস এবং পারসন টু পারসন ভেরি করে। So Generally Try করে দেখতে পারেন। পাইলে তো আম্মার হাতের মজার খাওয়া খাইবেন কিছুদিন ধুমায়া। না পাইলে Better Luck Next Time!