সোনালী ব্যাঙ্ক থেকে অবশেষে টাকা পাঠাতে পারলাম সফলভাবে।বুধবারে গিয়েছিলাম একাউন্ট খুলতে। সোনালী ব্যাঙ্কের নিয়ম অনুযায়ী পরের দিন বৃহস্পতিবার টাকা Swift Transfer করেছি। তারা যথেষ্ট আন্তরিক এবং আপনাকে চেষ্টা করবে সহায়তা করার। আজকে দুপুরেই Deutsch Bank থেকে confirmation পেয়ে গেলাম।


আমি দুই একটি বেসরকারী ব্যাংকেও গিয়েছিলাম। তারা আমাকে হাইকোর্ট দেখিয়েছে বেশ ভালোমতই। এক ব্যাংকের অফিসার আমার জার্মান ভাষায় লেখা ব্যাংক কনফার্মেশনের কাগজ এত মনোযোগ দিয়ে দেখছিলো যে আমি আকাশের চাঁদ হাতে পেয়ে ভাবছিলাম “পাইছি রে পাইছি, এ মনে হয় C2 করে আসছে”। দুর্ভাগ্যবশত উনি ৩০ মিনিট বহুত জ্ঞানী ভাব নিয়ে আমার কাগজ দেখার পর আমাকে সুপ্রীম কোর্ট দেখিয়ে জানালো এখানে একাউন্ট না থাকলে উনারা কিছুই করতে পারবেন না। আমি জানিনা হয়তো অনেকের বেসরকারী ব্যংকগুলোতে অভিজ্ঞতা ভালো ছিলো, আমার জন্য তা মোটেও সুখকর নয়।


সোনালী ব্যাংকে আপনার খরচ হবে নিম্নরুপঃ

– ৩৪৫০ টাকা স্টুডেন্ট ফাইল খুলতে চার্জ

– ১২০০ টাকা সুইফট করার চার্জ

– সেদিন বাংলাদেশ ব্যাংক যে রেটে ইউরো sell করছে, সেই রেটে ৮০৯০ ইউরো এর সমপরিমাণ টাকা। অন্যান্য ব্যাংকে তা অবশ্যই বেশি (বেসরকারী ব্যাংক এর কথা বলছি)

ডকুমেন্ট যা লাগবে তা অন্যান্য ব্যাংক যা চায় তাই। আমি ছবি সুংযুক্ত করে দিয়েছি যেগুলো লাগবে সেগুলোর। কিছু কিছু এখানে লাগেনি যেমন Financer. আমার সেখানে একাউন্ট ছিলোনা। Financer আমি নিজেই ছিলাম।

আপনি যদি যিনি এই কাজ করেন তাকে বুঝাতে পারেন তাহলে নিচের ছবিতে দেয়া ডকুমেন্ট থাকলে আর কোন কিছুরই প্রয়োজন হবেনা। মাথায় রাখবেন, সোনালী ব্যাংকে আপনার এজন্য দুদিন সময় দিতেই হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের ছবির জন্য নিচের লিঙ্কটি দেখুনঃ

আমি যে ব্রাঞ্চে কাজগুলো করিয়েছি তা হলো,

সোনালী ব্যাংক ওয়েজ আর্নার্স ব্রাঞ্চ
৬২, দিলকুশা।

কয়েকদিন পর ইন্টারভিউ। সবাই দোয়া রাখবেন। শুভকামনা রইলো।


আরো পড়তে পারেনঃ