German Embassy তে Spouse Visa বলে কোনও terminology নেই। যেটা আছে, সেটা হল Familiennachzugsvisum বা Family-reunion visa। প্রথম কথাই হচ্ছে, এদিকে সেদিকে আগে বেশী জিজ্ঞাসা না করে embassy এর ওয়েবসাইট দেখে নেয়া।
লিঙ্কঃ
ওখানে দেখেও প্রশ্ন থেকে গেলে তাহলে অন্যদের জিজ্ঞাসা করা যায়। এই প্রবন্ধটি শুধু তাদের জন্যই, যাদের জার্মানিতে থাকা আত্মীয় বা (হবু) স্বামী বা স্ত্রী জার্মান নাগরিক নন।
বুঝার সুবিধার্থে এই প্রবন্ধকে আটভাগে ভাগ করে দেয়া হচ্ছে।
১। ভিসা-প্রার্থীর (হবু) স্বামীর বা স্ত্রীর বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে দেশে যাওয়ার আগে কি করতে হবে / ভিসা-প্রার্থীর আত্মীয়ের আগেভাগে কি করতে হবে?
২। ভিসা-প্রার্থীর এবং তার (হবু) স্বামীর বা স্ত্রীর আবেদনের আগে ও পরে কি করতে হবে / ভিসা-প্রার্থীর এবং তার আত্মীয়ের আবেদনের আগে ও পরে কি করতে হবে?
৩। ফ্যামিলি-রিইউনিয়ন ভিসা এপয়েনটমেনট
৪। আবেদন-ফর্ম এবং আনুষঙ্গিক ব্যাপার
৫। মূল ডকুমেন্ট ও ফটোকপি
৬। বিবিধ তথ্য
৭। ভিসা পাওয়ার সময়সীমা এবং verification process
৮। ভিসা আনতে যাওয়ার appointment
১। ভিসা-প্রার্থীর (হবু) স্বামীর বা স্ত্রীর বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে দেশে যাওয়ার আগে কি করতে হবে / ভিসা-প্রার্থীর আত্মীয়ের আগেভাগে কি করতে হবেঃ
১ক। ভিসা-প্রার্থীর আত্মীয়ের বা (হবু) স্বামীর বা স্ত্রীরঃ
• job-visa বা Blue Card (Blaue Karte EU) থাকতে হবে
• অথবা, job বা funding সহ PhD-candidacy থাকতে হবে
• অথবা, নিজের এবং spouse বা আত্মীয়ের এক বছরের ভরণ-পোষণের জন্য ব্যাংকে যথেষ্ট অর্থ থাকতে হবে। সাধারণত, আমার জানা মতে, ৭২০ ইউরো করে প্রতিমাস প্রতিজন। ২ জনের এক বছরের খরচ ওই হিসেবে ন্যূনতম ১৭,২৮০ ইউরো। বাচ্চা হলে অর্ধেক, মানে প্রতিমাসে ৩৬০ ইউরো করে তার জন্য। সেক্ষেত্রে উদাহরণস্বরূপ, স্বামী-স্ত্রী এবং এক বাচ্চার জন্য এক বছরে দরকার হবেঃ ৭২০x২x১২ + ৩৬০x১x১২ = ২১,৬০০ ইউরো।
• Bachelor বা Masters student দেরও নিজের এবং spouse বা আত্মীয়ের এক বছরের ভরণ-পোষণের জন্য ব্যাংকে যথেষ্ট অর্থ থাকতে হবে।
• Bachelor বা Masters studentদের part-time কোনও জব থাকলে সেক্ষেত্রে bank balance কিছুটা কম হলেও ম্যানেজ করা যায়।
• কিছু exception ও আবার আছে। যেমনঃ scholarship holder, expatriates, asylees, refugeesদের ক্ষেত্রে। অথবা Germany তে Migration করার আগে বিয়ে করা থাকলে, তাদের নেয়ার কোনও নিয়ম থাকতে পারে। (উপরের ব্যাপারে কারও বেশী জানা থাকলে মন্তব্য করতে পারেন, সংশোধন করে দেয়া হবে)
১খ। নিবন্ধনকৃত ন্যূনতম প্রতিজনের জন্য 12m2 এর আবাসস্থল থাকতে হবে। ২জনের বাসা যেহেতু হবে, তাই নুন্নতম 24m2। আর তিনজনের জন্য হলে নুন্নতম 36m2। এভাবে বাড়তে থাকবে। বাসার lease agreement (contract paper / Mietvertrag) এবং Registration certificate / Meldebescheinigung পরে embassyতে দরকার হবে। Mietvertrag এ (হবু) স্বামীর বা স্ত্রীর নামও চাইলে বসিয়ে নিতে পারেন, তবে বাধ্যতামূলক নয়। নতুন নিয়ম অনুযায়ী বাসা registration এর জন্য কিন্তু আবার Wohnungsgeberbestätigung নিতে হবে। ওখানে আপনার spouse এর জার্মানিতে আসার তারিখ যদি জানা থাকে, তাহলে সেটা বসিয়ে দিতে আপনার Vermieterকে জানিয়ে দিন।
২। ভিসা-প্রার্থীর এবং তার (হবু) স্বামী বা স্ত্রীর আবেদনের আগে ও পরে কি করতে হবে / ভিসা-প্রার্থীর এবং তার আত্মীয়ের আবেদনের আগে ও পরে কি করতে হবেঃ
২ক। উভয়ের (স্বামী/স্ত্রীর ক্ষেত্রে যদি সন্তান থেকে থাকে তারও) জন্ম-নিবন্ধন (birth certificate) থাকতে হবে। যার যার স্থায়ী ঠিকানা বা জন্মস্থান যেখানে, সেখান থেকেই করানো ভালো। জন্ম-নিবন্ধনের সনদের জন্য যে বিশেষ ধরনের মোটা কাগজ (A4 নয়) ব্যবহার করা হয়, সেটাই যেন থাকে। আর এখন online এ জন্ম-নিবন্ধন অন্যান্য verification এর সুবিধার্থে করা হয়। সেটা করে নিতে পারলে আরও ভালো। নিজ নিজ ward commissioner বা chairman office এ যোগাযোগ করে নিন। জন্ম-নিবন্ধনের স্থায়ী-ঠিকানার সাথে যেন passport এর স্থায়ী ঠিকানার মিল থাকে সেদিকে ও খেয়াল রাখুন। online birth certificate এখানে check করুনঃ http://bris.lgd.gov.bd/pub/?pg=veri… আর website এ আবেদন না করে সরাসরি অফিসে যোগাযোগ করাই ভালো। আমি website এ আবেদন করেছিলাম, লাভ হয় নি। জন্মসনদের ব্যাপারে embassy এর নির্দেশনা নীচের লিঙ্কে দেখে নিনঃ http://www.dhaka.diplo.de/contentbl…
২খ। স্বামী/স্ত্রীর ক্ষেত্রে, এই বিয়ের আগে যদি আরেকটা বিয়ে থেকে থাকে, তাহলে সেটা গোপন রাখা উচিৎ হবে না। উল্লেখ করাটা কোন সমস্যাই নয়। এক্ষেত্রে আপনাকে নিতে হবেঃ
• সব ধর্মীয় রীতির ক্ষেত্রে, পূর্ববর্তী বিয়ের সনদ (বাংলা ও ইংরেজি), [মুসলিম বিয়ের ক্ষেত্রে কাজী অফিস থেকে]
• মুসলিম বিয়ের ক্ষেত্রে, পূর্ববর্তী বিয়ের নিকাহনামা (বাংলা ও ইংরেজি), [কাজী অফিস থেকে]
• পূর্ববর্তী স্বামীর বা স্ত্রীর মৃত্যু হলে, তার death certificate (বাংলা ও ইংরেজি)[ward commissioner বা chairman office]
• পূর্ববর্তী বিয়ে ভেঙ্গে গেলে, divorce certificate [মুসলিম বিয়ের ক্ষেত্রে কাজী অফিস থেকে]
• পূর্ববর্তী বিয়ে ভেঙ্গে গেলে, legal notice of divorce (বাংলা ও ইংরেজি)[উকিলকে দিয়ে যেটা পাঠানো হয়েছিলো]
• পূর্ববর্তী বিয়ে ভেঙ্গে গেলে, local council থেকে সনদ, (বাংলা ও ইংরেজি) [এটাকে অনেক জায়গায় arbitration council ও বলা হয়। শহরগুলোতে city corporation এর অধীনে থাকে]
• পূর্ববর্তী বিয়ের সন্তান থেকে থাকলে proof of legal custody
২গ। আত্মীয়ের ক্ষেত্রে, আত্মীয়তার সম্পর্কের সনদ। (এ ব্যাপারে বিস্তারিত কারও জানা থাকলে জানাতে পারেন)
২ঘ। জার্মান ভাষা কিছুটা শিখে আসাই ভালো। আত্মীয়ের ক্ষেত্রে Al German proficiency বাধ্যতামূলক। বাংলাদেশে একমাত্র ধানমণ্ডির Goethe Institut থেকেই এই পরীক্ষা নেয়া হয়।
শুধু ভাষা শিখার জন্য ঢাকার Goethe Institut এবং চট্টগ্রামের Die Sprache স্বীকৃত। Spouse হলেও আপনার A1 certificate লাগবে। যাদের A1 certificate থাকা বাধ্যতামূলক নয়, কিন্তু তারপরও জার্মান শিখছেন বা কিছুটা শিখেছেন, তারা চাইলে নিজ নিজ কোর্সের attendance certificate বা Teilnahmebestätigung সাথে রাখতে পারেন, তবে বাধ্যতামূলক কিছু নয়। তবে নিম্নোক্ত বেপারগুলোতে আপনার German proficiency লাগবে না (এই লিখার সময়কালে)ঃ
• আপনি নিজেই যদি আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী Germany যাওয়ার আগে একটি job contract নিতে পারেন (উচ্চযোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীর ক্ষেত্রে)
• শারীরিক বা মানসিক অসুস্থতা বা অযোগ্যতার কারণে যদি জার্মান শিখার সামর্থ্য না থাকে (এক্ষেত্রে হয়তো আপনাকে medical certificate দেখাতে হবে)
• অথবা আপনার Spouse এর যদি এই status এর ভিসা থাকেঃ European citizen, EU Blue Card holder (§ 19a AufenthG), Residents whose stay in Germany is of temporary nature (e.g. scholarship holders, expatriate staff)
• আর আপনার বিয়ে যদি আপনার spouse এর Germany তে migrate করার আগে হয়, সেক্ষেত্রে আরেকটু সহজ। নিম্নোক্ত visa status আপনার spouse এর থাকতে হবেঃ Highly-skilled workers (§ 19 AufenthG), Researchers (§ 20 AufenthG), Self-employed (§ 21 AufenthG), Asylum seekers or recognized refugees (§§ 25 Abs. 1, Abs. 2 and 26 Abs. 3 AufenthG) এক্ষেত্রে আপনাকে A1 Certificate এর বদলে আপনার বা আপনার জার্মানিতে অবস্থানরত আপনার স্পাউসের প্রাসঙ্গিক প্রমাণাদি দাখিল করতে হবে। যেমনঃ EU Blue Card বা Scholarship documents বা § 20 AufenthG বা § 21 AufenthG বা নিজের job contract বা medical certificate ইত্যাদি। বিস্তারিত দেখুনঃ http://www.dhaka.diplo.de/contentbl…
২ঙ। স্বামী/স্ত্রীর ক্ষেত্রে, সব ধর্মীয় রীতির ক্ষেত্রে, বিয়ের সনদ (বাংলা ও ইংরেজি), [মুসলিম বিয়ের ক্ষেত্রে কাজী অফিস থেকে]
২চ। স্বামী/স্ত্রীর ক্ষেত্রে, মুসলিম বিয়ের ক্ষেত্রে, বিয়ের নিকাহনামা (বাংলা ও ইংরেজি), [কাজী অফিস থেকে]
২ছ। নাম যদি পরিবর্তন হয়ে থাকে, তাহলে আর প্রমাণস্বরূপ notarize করা affidavit জমা দিন। একি সাথে ইংরেজি জাতীয় দৈনিকে দেয়া পত্রিকার ঘোষণাটাও সাথে রাখতে পারেন। (নাম পরিবর্তনের আমার অভিজ্ঞতা আছে। এটা নিয়ে হয়তো সামনে কিছু লিখবো।)
২জ। পাসপোর্ট। পাসপোর্ট পারতপক্ষে spouse এর ক্ষেত্রে বিয়ের পরে করাই ভালো। তাহলে ওখানে spouse এর নাম উল্লেখ করে দিতে পারবেন, যেটাতে আপনার হাতে আপনাদের বিয়ের শক্ত একটা প্রমাণ চলে আসলো। তবে এটা বাধ্যতামূলক কিছু নয়। (জেনে রাখা ভাল, বাংলাদেশী বিয়ে German Embassy এর verification ছাড়া জার্মানিতে স্বীকৃত নয়।)
২ঝ। ম্যাপ। আপনার বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা, জার্মানিতে থাকা আপনার স্পাউসের বাংলাদেশের বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা, কাজী অফিস বা বিবাহ-নিবন্ধন অফিসের ঠিকানা, যত ধরনের সনদপত্র বিভিন্ন জায়গা থেকে নিয়ে জমা দিচ্ছেন সেগুলোর প্রদানকারীর ঠিকানা, সব হাতে এঁকে জমা দিন। এমনভাবে মেপ আঁকুন, ওখানে যেন ঠিকানা স্পষ্টভাবে লিখা থাকে, আর কোনও পরিচিত জায়গা থেকে সহজে যেন ম্যাপ দেখেই যাওয়া যায়। (চাইলে গুগল-ম্যাপের স্নেপ ও দিতে পারেন। কিন্তু তারপরও embassyতে জব করা কিছু দেশি লোকজনের হাতে আঁকা ম্যাপকে অত্যাবশ্যকীয়করণ করা একটু আশ্চর্যজনকই বটে)। embassy এর investigatorরা অবশ্য ঢাকা থেকে যায়, এবং বিভিন্ন জায়গা নিয়ে তাদের কমই ধারণা থাকে। তাই ভাল ম্যাপ দিলে, সেটা আপনার জন্যই মঙ্গলজনক।
২ঞ। আপনার বিয়ের কিছু ছবি, যেখানে আপনার স্বজনেরা এবং প্রতিবেশীরা সাথে আছে, এমন কিছু ফটো ওয়াশ করিয়ে জমা দিতে পারেন। আর বিয়ে ছাড়া পরিবারের সাথে সাধারণ অবস্থার কিছু ছবি দিতেও দোষ নেই। (উল্লেখ্য, আমাদের দেশের কনেরা বিশেষ করে বিয়েতে মুখের মধ্যে যে পরিমান distemper আর enamel paint লাগায়, ওই অবস্থার ছবি দেখে তাদেরকে চেনা মুশকিলই বটে।)
৩। আবেদন-ফর্ম এবং আনুষঙ্গিক ব্যাপার http://www.dhaka.diplo.de/contentbl…
৩ক। আবেদন করতে হবে উপরোক্ত long-term visa এর আবেদনপত্র দিয়ে, Schengen visa নয়।
৩খ। প্রতিটা তথ্য অত্যন্ত ভালভাবে যাচাই করে দিন। ছোট একটা ভুল তথ্য দেয়ার জন্য পরে অনেক পস্তাতে হতে পারে।
৩গ। computer-typing করে আবেদনপত্র জমা দিন। শেষে স্বাক্ষরটা প্রমাণস্বরূপ ভিসা অফিসারের সামনেই চাইলে করতে পারেন।
৩ঘ। যে মোবাইল নাম্বার সবসময় আপনার সাথে থাকে, সেটাই আবেদনপত্রে দিন। ভিসা হয়ে গেলে দিনের বেলা যেকোনো সময়ে আপনার নাম্বারে কল আসতে পারে। আর নিজের ইমেইল অ্যাড্রেস দিন, অন্য কারও নয়। Standard email address হলঃ [email protected]। উদাহরণঃ  [email protected] অথবা [email protected]
৩ঙ। গত ছয় মাসের মধ্যে তোলা দুটি বায়োমেট্রিক ফটো (সম্ভব হলে বেশী করে নিয়ে যান)। বায়োমেট্রিক ফটোর নিয়ম-কানুন এখানে দেখে নিতে পারেন। এই পেজটা printout করে studioতে দিয়ে দিতে পারেন, যেন তারা আবার ভুল না করেঃ http://www.dhaka.diplo.de/contentbl…
৩চ। ২২,০০০ টাকা ও ৬০ ইউরো। (লিখার সময়কালীন প্রচলিত ফি)
৪। ফ্যামিলি-রিইউনিয়ন ভিসা এপয়েনটমেনট
৪ক। visa appointment অনলাইনে পাওয়া যায়। National Visa (D-Visa) এর জন্য appointment নিবেন, Schengen visaএর জন্য নয়। নীচে লিঙ্কঃ https://service2.diplo.de/rktermin/…
৪খ। এমব্যাসিতে যাওয়ার সময় যথেষ্ট সময় হাতে রাখতে পারলে ভাল। ঢাকায় কি পরিমাণ ট্রাফিক জ্যাম থাকে, সেটা সবারই ভাল জানা।
৪গ। পরিবার-পরিজন সবাইকেই নিয়ে যেতে পারেন অসুবিধা নেই, কিন্তু আপনি ছাড়া সবাই যেতে পারবে গেট পর্যন্ত। ভিসাপ্রার্থী ছাড়া আর কাউকে ভিতরে ঢুকতে দেয়া হয় না, সে যত কাছের আত্মীয়ই হোক, অথবা পরিবারেরই কেউ হোক।
৪ঘ। এটা visa appointment, job interview নয়। প্রতারণা না করলে ফেল করার সম্ভাবনা তেমন নেই বললেই চলে। আর এমব্যাসিতে যারা থাকে, তারা দেখতে আমাদের মতই, বাঘ-ভালুক নয়। কাজেই নার্ভাস হবেন না।
৪ঙ। কোনও কারণে visa appoitnemnt পরিবর্তন করতে হলে, প্রথমেই পূর্ববর্তী appointment cancelled করে নিন। তারপর আবার নতুন appointment এর জন্য চেষ্টা করুন। এগুলো সবই website এ গিয়ে onlineএ করা যায়। ৪চ। Appointment নেয়ার জন্য পাসপোর্ট নাম্বার দরকার হয়। কাজেই পাসপোর্ট হাতে আসার আগ পর্যন্ত appointment নেয়া যাবে না।
৪ছ। এমব্যাসি থেকে নির্ধারিত ফি আপনাকে appointment এর সময়েই এমব্যাসি থেকে নির্দেশিত ব্যাংকে গিয়ে জমা দিয়ে আসতে হবে।
৫। মূল ডকুমেন্ট ও ফটোকপি মুল-কপি কি কি জমা দিতে হবেঃ
• দুইটি আবেদনপত্র (দুইটি বায়মেত্রিক ছবি সহ)
• পাসপোর্ট
• দুইজনের জন্মসনদ (birth certificate) [ইংরেজি] এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে,
• বিয়ের সনদ (marriage certificate)[বাংলা ও ইংরেজি]
• নিকাহনামা [বাংলা ও ইংরেজি]
• পূর্ববর্তী বিয়ে থাকলে, সে সম্পর্কিত যাবতীয় কাগজপত্র [বাংলা ও ইংরেজি]
ফটোকপি কি কি জমা দিতে হবে (সবগুলোর ২ কপি করে, সত্যায়িত করতে হবে না, এমব্যাসি নিজেই আপনার সব কিছু সত্যায়িত করবে)ঃ
• ভিসাপ্রার্থীর পাসপোর্টের identification page
• Germany তে থাকা আত্মীয় বা স্পাউসের পাসপোর্টের সব পাতার (খালি পাতাসহ) ফটোকপি [যে পাসপোর্টটি বিয়ের দিনে ভ্যালিড ছিল সেটির। বর্তমান পাসপোর্ট আরেকটি হলে নিশ্চিন্ত থাকার জন্য সেটার কপিও দিতে পারেন]
• দুইজনের জন্মসনদ (birth certificate) [ইংরেজি]
এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে,
• বিয়ের সনদ (marriage certificate)[বাংলা ও ইংরেজি]
• নিকাহনামা [বাংলা ও ইংরেজি]
• পূর্ববর্তী বিয়ে থাকলে, সে সম্পর্কিত যাবতীয় কাগজপত্র [বাংলা ও ইংরেজি]
• জার্মানিতে থাকা স্পাউসের পূর্ববর্তী ৩ মাসের Salary statement অথবা/এবং দুজনের এক বছরের ভরণ-পোষণের জন্য জার্মান ব্যাঙ্কে থাকা পর্যাপ্ত অর্থের account statement [EU Blue Card এবং full-time recognized job এর ক্ষেত্রে শুধু salary statement দিতে হবে]
• যে বাসায় গিয়ে উঠবেন সে বাসার registration certificate বা Meldebescheinigung
• সে বাসার lease agreement বা Mietvertrag
অন্যান্য (এক কপি করে)ঃ
• বর্ণিত সব জায়গার ম্যাপের হাতের স্কেচ
• বিয়ের সময়কার ছবি / পরিবার-পরিজনের সাথে তোলা ছবি
• Appointment confirmation এর e-mail এর প্রিন্টআউট
৬। বিবিধ তথ্য
৬ক। আকদের আগে আপানদের নিজেদের এবং পিতা-মাতার এবং সাক্ষীদের ও তাদের পিতা-মাতার নামঠিকানা (বাংলা ও ইংরেজি) ও জন্মতারিখ ভালোভাবে প্রত্যেকের পাসপোর্ট বা জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী যাচাই করে নিন। কাজী অফিসের লোকজন সাধারণত দুর্নীতিবাজ হয়ে থাকে। আর সাধারণত ইচ্ছে করেই তারা সবার আকিকা করিয়ে দেয়, I mean নতুন নতুন বানান দিয়ে নাম দিয়ে দেয়। এতে আপনাকে নিকাহনামা আর বিয়ের সনদ আপনাকে আবার পরিবর্তন করবে। যতবার সংশোধন করাবেন, ওদের ইনকামও তত বাড়তে থাকবে। আর সাধারণত একটা প্রিন্টআউটের খরচ কেমন এটা আমাদের সবারই জানা থাকার কথা। তাই নিজের পকেটকে বাঁচাতে চাইলে তাদের সাথে সাবধানে লেনদেন করুন।
৬খ। দেনমোহর আর উসুল (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) নিয়ে নিকাহনামাতে কি লিখা হচ্ছে, ভাল করে দেখে নিন। এটাও কাজী অফিসের লোকেরা নিজেদের মতো বসিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে।
৬গ। বিয়ের সনদ আর নিকাহনামার ইংরেজি ভার্সনটা ভাল করে চেক করে নিন। আমার ক্ষেত্রে বিয়ের সনদে বেশ কিছু ইংরেজি ব্যাকরণের ভুল ছিল। অনেকটা তাদেরকে কিছুটা জোর করেই পরিবর্তন করাতে পেরেছি।
৬ঘ। আপনার কাছ থেকে অধিক লাভ করার আশায় কাজী অফিসের লোকেরা সবকিছুর ফটোকপি notarize করিয়ে নিয়ে আসবে। আগেভাগেই মানা করে দিন। German embassy এর লোকেরা নিজেরাই আপনার সব ডকুমেন্ট চেক করবে। তাই বিয়ের ডকুমেন্টগুলো Notarize করার কোনও মানে নেই। বিরল ক্ষেত্রে, কিছু ইংরেজি অনুবাদে হয়তো notarize করাতে হতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনি নিজে গিয়ে সামনে উপস্থিত থেকে notary public করানো ভাল। পাতি-উকিল বা কেরানী বা কাজীকে দিয়ে notarize করালে পরে embassyএর verification এ ধরা খাওয়ার সম্ভাবনাই বেশী।
৬ঙ। Spouse এর ক্ষেত্রে, যিনি আগে থেকে জার্মানিতে আছেন (মানে যিনি ভিসাপ্রার্থী নন) দেশ থেকে বিয়ে করে আসার পরপরই EInwohnermeldeamt এ জানিয়ে দিন, যে আপনি বিয়ে করে এসেছেন। তবে আপনার marriage certificate এ German Embassy Dhakaএর recognition-seal থাকার আগ পর্যন্ত আপনি Germanyতে officially married নন। তাই আপনার বিয়ে এমব্যাসি থেকে স্বীকৃত হওয়ার আগে যদি আপনি জার্মানিতে বিবাহিত হিসেবে আপনার ট্যাক্স-ক্লাস পরিবর্তন করতে চান, সেক্ষেত্রে তারা আপনার স্পাউসের সম্ভাব্য ভিসা পাওয়ার ও জার্মানিতে আসার তারিখটা জেনে নিবে। পরে আপনার স্ত্রী marriage certificate এ recognition-seal পেলে (ভিসা নেয়ার সময় সবাই পায়) সেটার মূলকপি তাদেরকে দেখাবেন। তখন তারা পরিবর্তন করে নিবে। একি কথা আপনার চাকরিদাতার ক্ষেত্রে ও প্রযোজ্য। আশা করা যায়, এই মাঝের সময়ে tax-classএর যে সুবিধাটা পাননি (মানে কম ট্যাক্স দেয়ার) সেটা পরবর্তীতে পরিশোধ করে দেয়া হবে।
৬চ। Spouse এর ক্ষেত্রে, যিনি আগে থেকে জার্মানিতে আছেন (মানে যিনি ভিসাপ্রার্থী নন)ঃ জার্মানিতে আপনি যদি non-religious হিসেবে registered থাকেন, বাংলাদেশে পারিবারিক কারণে মুসলিম বা হিন্দু আইন অনুযায়ী বিয়ে করে আসলে ও সমস্যা নেই। এটাকে জার্মানিতে কোনও সমস্যা বলে গণ্য করা হয় না।
৬ছ। ভিসাপ্রার্থীর জন্যঃ আপনার পড়াশোনার যোগ্যতা embassy তে কোনও ব্যাপার নয়। তারা শুধু দেখতে চাইবে, আপনি আদৌ আইনত বিবাহিত কিনা। কাজেই ক্লাস ফাইভ পাস করেন, বা ডক্টরেট করেন, এমব্যাসি পড়াশোনা সম্পর্কিত ডকুমেন্ট সাধারণত চাইবে না।
৬জ। ভিসাপ্রার্থীর জন্যঃ travel health insurance যেটা এমব্যাসি দেখতে চায়, সেটা বাংলাদেশেই করাতে হবে। কারণ জার্মান health insurance company গুলো আপনার জার্মানিতে আসার আগ পর্যন্ত আপনাকে insurance দিতে চাইবে না।
৬ঝ। Spouse জার্মানিতে আসার পরে একজনের health insurance (AOK, TK ইত্যাদি ইত্যাদি) দিয়েই আরেকজনেরটা কাভার হয়ে যাবে। অতিরিক্ত কোনও পেমেন্ট করতে হয় না।
৭। ভিসা পাওয়ার সময়সীমা এবং verification process:
৭ক। সাধারণত নুন্নতম ১২ সপ্তাহের বা তিন মাসের কথা বলা হয়। [তবে আমার স্ত্রী অনেকটা দেড় মাসের মধ্যেই ভিসা পেয়ে গিয়েছিল]
৭খ। প্রথমে একজন investigator verification করতে যান। তিনি কখনও এক মাসের মধ্যে বা কখনও দেরিতে যেতে পারেন। আবেদনপত্রে ও স্কেচে দেয়া প্রত্যেকের বাসায় তিনি যেতে পারেন, অথবা বাসায় না গিয়ে আশে-পাশের প্রতিবেশী, দোকানদার, মশজিদের ইমামকেও জিজ্ঞাসা করতে পারেন। কাজী অফিসে সাধারণত সবাই যান। ওখানে গিয়ে উনারা বিয়ের সব কাগজপত্র চেক করে নেন।
৭গ। বাংলাদেশে সব OK হয়ে গেলে, এরপর জার্মানিতে থাকা আত্মীয়ের বা স্পাউসের সংশ্লিষ্ট Ausländerbehörde বা foreigners’ authorityতে ২য় ধাপের verificationএর জন্য পাঠানো হয়। Ausländerbehörde গুলো স্বতন্ত্র ভাবে কাজ করে। তাই কোনও Ausländerbehörde থেকে চিঠি পাঠানো হয়, এবং গিয়ে উপস্থিত থেকে কাগজপত্র (job contract paper, Blue Card বা Residence Card ইত্যাদি) বুঝিয়ে দিতে হয়। অনেক সময় Ausländerbehördeতে কাগজ এমনিতেই জমা থাকায়, তারা নিজেরাই সরাসরি German Embassy তে consent পাঠিয়ে দেন।
৮। ভিসা আনতে যাওয়ার appointment:
৮ক। ভিসা হয়ে গেলে embassy তে জমা দেয়া আবেদনপত্রে লিখা আপনার মোবাইল-নাম্বারে কল দেয়া হবে। সাধারণত দুপুরে-বিকেলে কল আসে। তারাই আপনাকে বলে দিবে কি কি তখন করতে হবে।
৮খ। এমব্যাসি থেকে অনুমোদন করা insurance companyগুলো পাবেন নীচের লিঙ্কেঃ http://www.dhaka.diplo.de/contentbl…
৮ঘ। এরপর এমব্যাসি থেকে বলে দেয়া সময়সূচী অনুযায়ী সেখানে চলে যান। সাথে নিয়ে যেতে হবেঃ • visa appoitnemnt এর সময় এমব্যাসি থেকে দেয়া receipt • flight ticket (আবশ্যক হয়তো নয়) • travel health insurance (১৪ দিনের, যাওয়ার তারিখ থেকে)
৮ঙ।এমব্যাসি থেকে অবশ্যই বুঝে নিনঃ
• ভিসাসহ আপনার পাসপোর্ট (ভিসাতে উনাদের নামের বানান বা অন্য কিছু ভুল দেয়ার প্রবণতা যথেষ্ট লক্ষণীয়। ভাল করে চেক করে নিন। ভিসা দিবে সাধারণত আপনার ফ্লাইট বা travel health insurance এর শুরুর তারিখ থেকে।)
• বিয়ের সনদ ও নিকাহনামা, প্রযোজ্যক্ষেত্রে (এক্ষেত্রে প্রতিটা ডকুমেন্টে এমব্যাসি থেকে দেয়া recognition-seal বুঝে নিন)
• প্রতিজনের জন্মসনদ
• অন্যান্য সমস্ত মূলকপি সবশেষে বাসায় চলে আসুন, আর টেনশন শেষ করে ভাল ঘুম দিন, আর জার্মানি আসার জন্য সবধরনের প্রস্তুতি নিতে থাকুন। Willkommen in Deutschland! (Welcome to Germany!)
বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ আমার ভুলগুলোকে আশা করি পাঠকেরা ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। যে কোনও ধরনের সংশোধনের প্রস্তাব স্বাগতম। আর হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, অন্য ধর্মীয়,‌ আন্ত-ধর্মীয়, এবং সেকুলার রীতির ক্ষেত্রে বাংলাদেশে কি করতে হয়, এটা নিয়ে অভিজ্ঞতা থাকলে দয়া করে একটু জানাবেন। সে অনুযায়ী এখানে আরও কিছু যোগ করে দেয়া হবে।
আবেদ কাজী
September, 2016
কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ আসিফ, সাব্বির আহমাদ, মাহবুব আলম, শারমিন চৌধুরী