এই একটি বিষয় নিয়ে আমার মনে হয় সবচেয়ে বেশি পোস্ট করা হয়েছে গ্রুপে। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাবে অনেক সিনিয়ররাই ব্যাপারটা সবার বোধগম্য করার চেষ্টা করেছেন…কিন্তু কোথায় কি…দিন শেষে ওই একই কথা…তাল গাছ আমার। হ্যা…আমি ল্যাংগুয়েজ ভিসা নিয়ে ল্যাংগুয়েজ + ব্যাচেলর করার ব্যাপারে অদম্য আগ্রহী ভাই বোনদের কথাই বলছি!!! আসলে দেশের ফালতু এজেন্সী গুলার চটকদার বিজ্ঞাপন, তাদের নিয়োজিত দালালদের মুখরোচক বানী, দেশের বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে ভর্তি যুদ্ধ, সর্বোপরি উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন সব মিলিয়ে একটা জট পাকানো ভাবনা আর আগে যাই…তারপর একটা ব্যবস্থা নিশ্চয় হবে…এরকম একটা চিন্তা। কিন্তু বাস্তবতা এখানে আসলেই অন্য রকম!!!

আশা করি এই লিখাটি আপনার শিক্ষা জীবনের মূল্যবান সিদ্ধান্ত্টি নেয়ার ক্ষেত্রে কিছুটা হলেও সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। পাশাপাশি জার্মানিতে অধ্যয়নরত সকল সিনিয়র ভাইয়া আপুদের এই ব্যাপারটি সাপোর্ট না করার বিষয়ে কিছুটা হলেও আপনারা একটু ধারণা পাবেন।

জার্মানিতে ব্যাচেলর করতে আসার সুবিধা অসুবিধা নিয়ে অনেক বিতর্ক রয়েছে। এর পক্ষে বিপক্ষে অনেক রকম যুক্তিই উপস্থাপন করা যায়। তবে জার্মানিতে ব্যাচেলর শিক্ষা ব্যবস্থা সম্পর্কে সম্যক ধারণার অভাব এবং অবশ্যই অর্থনৈতিক সীমাবদ্ধতা বিগত বছর গুলোতে আসা ব্যাচেলর শিক্ষার্থীদের জীবনে এক দুঃস্বপ্ন নিয়ে এসেছে। আমরা সবাই কম বেশি মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। বাবা মার মাথার ঘাম পায়ে ফেলে সারা জীবনের উপার্জিত  টাকার ব্লক মানি সম্বল করেই আমাদের এখানে পরতে আসা। কথাটি আমার জন্য প্রযোজ্য…হয়ত আর ও অনেকের জন্যই খাটে।তবে দুই চারজন এর ব্যতিক্রম থাকতে পারেন। উনাদের জন্য হয়ত টাকার হিসেবটা খাটবে না…যাক আপনারা যারা এখানে ব্যাচেলর এ আসতে চান তারা নিশ্চয় জানেন এখানকার স্টাডি ল্যাংগুয়েজ জার্মান এবং আপনাকে অবশ্যই C1 শেষ করে স্টুডিয়েনকলিগ করে তারপর ইউনিভার্সিটিতে এডমিশন পেতে হবে।

তবে আমি এখানে জার্মানিতে এসে ল্যাঙ্গুয়েজ কোর্স করার কিছু অসুবিধার কথা আপনাদের সামনে তুলে ধরছি :

১। আপনি যদি সময়মত প্রতিটি ল্যাংগুয়েজ কোর্স এখানে এসে শেষ করেন তারপর ও আপনার নূন্যতম সময় লাগবে ১/১,৫ বছর এবং শুধুমাত্র কোর্স ফি বাবদ আপনার খরচ হবে ৩০০০-৩৫০০ ইউরো। থাকা খাওয়া বাবদ ৪৮০০-৭২০০ ইউরো (যদি আপনার ১,৫ বছর লাগে)। বাংলাদেশ থেকে যদি আপনি গ্যাটে ইন্স্টিটিউট থেকে B1 পর্যন্ত করে আসেন তাহলে আপনার কোর্স ফি বাবদ খরচ পরবে প্রায় ৬৫০ ইউরো আর থাকা খাওয়া…বাপের হোটেল আর মায়ের রান্না।

এই বিষয়ে এই বছর অক্টোবর থেকে চালু হওয়া এম্বেসির নতুন নিয়ম সম্পর্কে একটু বলতে চাই। নতুন নিয়ম অনুযায়ী ব্যাচেলর এ আসতে হলে শুধুমাত্র ভিসা ইন্টারভিউ দেয়ার জন্য আপনাকে B1 সার্টিফিকেট দেখাতে হবে…মতান্তরে এম্বেসি কিন্তু ভালই করেছে…আমরা বাঙালি ঠেলা না খাইলে ত আর আমরা শিখি না…

২।কখনো দেখা যায় আপনি যে ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হতে চান আপনার ল্যাংগুয়েজ স্কুল হয়ত সেই সিটিতে না। সেক্ষেত্রে আপনার গাট্টি অন্তত দুবার গোল করতে হবে ব্যাচেলর শুরু করার আগেই।

৩।ল্যাংগুয়েজ স্টুডেন্ট থাকা অবস্থায় আপনি কখনই ইউনিভার্সিটির ডর্মে সিট পাবেন না। সেক্ষেত্রে আপনাকে প্রাইভেট হাউজিং এ থাকতে হবে। হয়ত সেটা শেয়ারিং ফ্ল্যাট অথবা প্রাইভেট স্টুডেন্ট ডর্ম। আর এক্ষেত্রে আপনার খরচ পরবে অনেক বেশি। আর শেয়ারিং ফ্ল্যাট গুলা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ফার্নিস থাকে না। ত আপনার ভাল একটা এমাউন্ট খরচ হবে ফার্নিচার এর পিছনে।

৪।আপনি যে শহরেই থাকেন না কেন এখানে এসে আপনাকে প্রথমেই যে কাজটি করতে হবে তা হল সিটি রেজিস্ট্রেশন আর এর জন্য আপনাকে অবশ্যই নিজস্ব হাউজিং কন্ট্রাক্ট থাকতে হবে। ত আপনি চাইলেই এক রুমে দুই জন শেয়ার করতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে আপনার ল্যাংগুয়েজ স্কুল যদি বার্লিন,মিউনিখ, কোলন কিংবা ফ্রাঙ্কফুর্ট এলাকায় হয় তাহলে প্রাইভেট হাউজিং এ থেকে হেলথ ইন্সুরেন্স এর খরচ কর্তন হবার পর খাওয়া দাওয়া সহ ৪০০ ইউরোতে মাস চালানো স্বপ্নই বটে!!!

৫।তাহলে আপনি এখন অবশ্যই চিন্তা করবেন মেইন সিটিতে না থেকে একটু শহরের বাইরে কিংবা পাশের কোন সিটিতে থাকলেই হয় যেখানে ভাড়া কম। এইখানেও বিপদ! আপনি ল্যাঙ্গুয়েজ স্টুডেন্ট থাকা অবস্থায় কোন সেমিস্টার টিকেট পাবেন না যেটা ভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার পর আপনি পাবেন। এই সেমিস্টার টিকেট দেখালে সাধারনত আপনি ওই স্টেট এর যে কোন যানবাহনে ফ্রি চলাচল করতে পারবেন। তো এক্ষেত্রে আপনাকে হয়ত মাসিক টিকেট (Monatskarte)কাটতে হবে যার খরচ পরে শহর ভেদে গড়ে ৮০-১০০ ইউরো এবং এক্ষেত্রেও জোন ভাগ করা থাকে মানে আপনাকে অন্য জোনে যেতে হলে আলাদা ভাবে টিকেট কাটতে হবে।

৬।সব শেষে আসি পার্ট টাইম জব এর ব্যাপার এ। আহ…এখানেই কবি নিরব।ল্যাংগুয়েজ স্টুডেন্ট থাকা অবস্থায় আপনি কোন ওয়ার্ক পারমিট ও পাবেন না যতদিন না আপনি ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হচ্ছেন। এই সময়টাতে আপনাকে যদি কাজ করতে হয় তাহলে সেটা হবে ইলিগ্যাল।অবশ্যই সেটা রেস্টুরেন্ট ছাড়া আর কোথাও হবে না…এই যেমন আমাজন, বিএমডব্লিউ অথবা কোন বহুজাতিক কোম্পানিতে।

সর্বোপরি আপনি যদি কোন এক্সাম এ খারাপ করেন আর সেটা আপনাকে আবার রিটেক নিতে হয় অথবা আপনি যদি ইউনিভার্সিটির প্লেসমেন্ট টেস্টে প্রয়োজনীয় গ্রেড তুলতে না পারেন তাহলে সেটা শুধু আবার এক্সাম দিতে বসাই হবে না…হবে আরো কিছু ইউরোর শ্রাদ্ধ্য…হুম ইউরোর শ্রাদ্ধ্যই টাকার না…সাথে আরও কিছু দিন জার্মানিতে থাকা…একবার ভেবে দেখবেন তখন কেমন হবে আপনার জার্মানির দিনগুলো!!!

 

Main Article Courtesy : Rashidul Hasan vi

Edited

Anik Paul Mishu

Information & Communication System

Technische Üniversität Chemnitz