এক বছর আগে জার্মানিতে পাওয়া আমার প্রথম স্কলারশিপ নিয়ে লিখেছিলাম। বলতে পারেন এটি তার দ্বিতীয় কিস্তি। আগের লিখাটি পড়তে পারেন এখান থেকে https://www.germanprobashe.com/archives/18503

কিছুদিন আগে পেয়ে যাই অনেক আকাংখিত Deutschlandstipendium এর এ বছরের রেজাল্ট। পোস্ট বক্সে অযত্নে অবহেলায় পড়ে ছিল যা কিনা আমি ডিজিটাল পোস্ট বক্সে প্রতিনিয়ত হাতড়ে বেড়াচ্ছিলাম।

এ বছর আমি একইসাথে TU Munich এবং TU Dresden এই দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের Deutschlandstipendium এর জন্য আবেদন করি। অনেকেই অবাক হতে পারেন, তাদের জন্য বলছি আমি এই উইন্টার সেমিস্টার এ দুটো বিশ্ববিদ্যালয়ের ই ছাত্র।

এবার TU Munich থেকে পাই নি পেয়েছি TU Dresden থেকে।

যেহেতু প্রথম সেমিস্টারে এপ্লিকেশন নিয়ে আমি উপরের পোস্টে লিখেছিলাম তাই আমি এখন সরাসরি দ্বিতীয় মেয়াদে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কিছু বলার চেষ্টা করছি।

কি কি লাগছে???

1. Cover letter

2. Enrolment certificate

3. Previous semester results

4. CV

5. Volunteer certificate ***

6. Internship certificate***

7. Achievement certificate (Study related) ***

8. Other qualification and knowledge acquired (Study related training) ***

9. Bachelor Certificate

10. Bachelor transcript

11. আপনি চাইলে আরও যা দিতে পারেনঃ (https://tu-dresden.de/studium/rund-ums-studium/foerderung-und-finanzierung/deutschlandstipendium/bewerben)

• professional qualification and references
• other qualifications and knowledge
• social and/or family commitment
• conditions that have adversely affected your educational biography

***যদি আপনার থাকে (দয়া করে কোন অসত্য তথ্য দিবেন না)

সম্পুর্ণ বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে কিছু টিপস্ (ভিন্নমত সবসময়ই গ্রহণযোগ্য)

১) রেজাল্ট ভালো রাখতে পারলে এগিয়ে থাকা যায়

২) সব ক্রেডিট শেষ করতে না পারলেও আবেদন করতে কার্পন্য করবেন না (আমি কিন্তু আপনারই দলের)

৩)কাভার লেটারের গুরুত্ব অনেক অনেক বেশি, তাই সময় দিয়ে লিখুন। সিনিয়রদের থেকে রিভিউ নিন (আমিও নিয়েছি)। কি বলবেল সে ব্যাপারে ভালো করে ভাবুন তারপর লিখুন। (কাভার লেটার অনেকেই গতবার চেয়েছিলেন এবার ও চাইবেন হয়তোবা, ব্যক্তিগত তথ্য থাকায় এখানে দিতে পারছিনা বলে আন্তরিক ভাবে দুঃখিত)

লক্ষ্য করুনঃ

১) আপনাকে আবেদনের বিভিন্ন ধাপে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে, যা আপনি আগে থেকে লিখে রাখতে পারেন। (ইউনিভার্সিটি ভেদে এসব ভিন্ন হয়। সাধারণত সামাজিক, প্রাতিষ্ঠানিক এবং সেচ্ছাসেবামূলক কাজের বিস্তারিত বলা লাগে)

২) ইউনিভার্সিটি ভেদে আবেদনের প্রক্রিয়ার ভিন্নতা রয়েছে যা গত একবছরের ভাইবোন দের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে জেনেছি। উনাদের অনেকেই পরবর্তীতে স্কলারশিপ পেয়েছেন। তাদেরকে অনুরোধ করেছিলাম এবং আবারও করছি আপনারা একটু সময় বের করে আপনাদের অভিজ্ঞতা একটু লিখুন, তাহলে আপনার ইউনিভার্সিটির নতুনদের কষ্ট অনেকাংশেই কমে যাবে।

এবারকার স্কলারশিপ পাওয়া ভাই-বোন এবং বন্ধুদের অভিনন্দন জানাই এবং আগামীতে যারা আবেদন করবেন তাদের জন্য শুভকামনা জানিয়ে আজকে এখানেই বিদায় নিচ্ছি।

আবারও নতুন কিছু নিয়ে আপনাদের মাঝে হাজির হবার অপেক্ষায়……