হাইনরিশ ব্যোল (Heinrich Böll) ফাউন্ডেশন একটি বৃত্তি বা স্কলারশিপ দানকারী প্রতিষ্ঠান৷ সারা পৃথিবীতে প্রতি বছর প্রায় ১০০০ জন ছাত্র-ছাত্রীকে তাঁরা ব্যাচেলর্স, মাস্টার্স, পিএইচডি লেভেলে বৃত্তি দিয়ে থাকে৷ এছাড়া, এই মুহুর্তে হাইনরিশ ব্যোল সংগঠনটি ৬০ টি দেশে ২’শটি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রজেক্টে আর্থিকভাবে সাহায্য করছে৷

জার্মানির নোবেলজয়ী লেখক হাইনরিশ ব্যোল! জার্মান যুদ্ধোত্তর সাহিত্য অঙ্গনের এক প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব হাইনরিশ ব্যোল৷ বিশ্বব্যাপী তাঁর সাহিত্যকর্ম সমাদৃত৷ ফেডারেল জার্মান প্রজাতন্ত্রের একজন লেখক হিসাবে ১৯৭২ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান ব্যোল৷ ব্যোল সাহিত্য চর্চা করতেন সাধারণ মানুষের জন্য। তার সাহিত্যে সাধারণ মানুষের উপর নাৎসি শাসনের প্রভাব, যুদ্ধ ও তার ফলাফল, বাস্তব ও মানসিক পীড়া প্রকাশ পেয়েছে গভীরভাবে। সাধারণ মানুষই তার উপন্যাসের নায়ক। তার গল্পের খল চরিত্ররা মূলত সরকারী কর্তৃপক্ষ, ব্যবসা এবং গির্জার প্রতিনিধি। তাদের প্রথানুবর্তিতা, সাহসিকতার অভাব, আত্মতৃপ্ত মনোভাব এবং ক্ষমতার অপব্যবহার, এসব তিনি কখনো কৌতুকপূর্ণভাবে, কখনো বা বিদ্রুপাত্মকভাবে প্রকাশ করেছেন। তাঁর মৃত্যুর পর প্রতিষ্ঠিত হয় ‘হাইনরিশ ব্যোল ফাউন্ডেশন।

কবে আবেদন করা যায়?

বিদেশী ছাত্র-ছাত্রী বৃত্তির জন্য আবেদন করতে আগ্রহী তাদের অবশ্যই জার্মানীতে যে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে হবে৷ বলে রাখা উচিৎ পড়াশোনা চলাকালীন অবস্হাতেও হাইনরিশ ব্যোল ফাউন্ডেশনে বৃত্তির জন্য আবেদন করা যায়৷ তবে মাস্টার্স এবং গ্রাজুয়েশন প্রোগ্রাম শুরু হওয়ার আগে সবসময়ই ছাত্র-ছাত্রীদের আবেদন করার জন্য বলা হয়৷

ডেডলাইন

প্রতি বছর দুবার এপ্লিকেশন নেয়া হয়। ১ মার্চ এবং ১ সেপ্টেম্বর। ডেডলাইনের ৬ সপ্তাহ আগে থেকে এপ্লিকেশন পোর্টাল খোলা হয়। তবে ডেডলাইনের জন্য অপেক্ষা না করে আগেভাগে এপ্লাই করে রাখা উচিত। অনালাইনে এপ্লিকেশন করতে হয়।

বৃত্তির পরিমাণ

মাস্টার্সঃ প্রতি মাস ৭৫০ ইউরো এবং আনুসাংগিক আরো কিছু ভাতা,পিএইচডি: প্রতি মাসে ১০০০ ইউরো এবং আনুসাংগিক আরো কিছু ভাতা

নির্বাচন প্রক্রিয়ার ধাপসমূহ

হাইনরিশ ব্যোল ফাউন্ডেশনে আবেদন পত্র পাঠানোর নিয়মটিকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে৷ নিচে যথাক্রমে সংক্ষেপে বলা হলঃ-

১ম ধাপঃ অনলাইনে আবেদন করার পর, প্রাথমিক বাছাই পর্বে ১০ থেকে ২০ শতাংশ প্রার্থীর সাথে যোগাযোগ করা হয়৷

২য় ধাপঃ এই পর্যায়ের বাছাই পর্বে আছে এক ঘন্টার একটি ইন্টারভিউ৷ হাইনরিশ ব্যোল ফাউন্ডেশনের লিয়াঁজো লেকচারার দায়িত্বে যিনি থাকবেন তিনিই থাকবেন ইন্টারভিউ-এর দায়িত্বেও৷ এখানে প্রার্থীর যোগ্যতা যাচাই করবেন লিয়াঁজো লেকচারার৷

৩য় ধাপঃ সবশেষে ওয়ার্কশপ৷ এখানে আছে একটি সংক্ষিপ্ত ইন্টারভিউ, গ্রুপ ডিসকাশন এবং যে বিষয় নিয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করা হবে তার ওপর একটি সংক্ষিপ্ত প্রেজেন্টেশন৷ এই প্রেজেন্টেশনের মধ্য দিয়েই প্রার্থীকে উপস্হাপনা এবং বিষয়ের গুরুত্ব প্রমাণ করতে হবে৷

কীভাবে আবেদন করবেন?

১ম ধাপে শুধু অনলাইন এপ্লিকেশন নেয়া হয়।

1. ১ম এ দেখুন আপনি স্পেশাল গ্রুপে আছেন কিনা। থাকলে আপনার জন্যই সুবিধা।
2. পুরো প্রক্রিয়া এবং ধাপ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করুন।
3. ওয়েবসাইটে রেজিট্রেশন করুন।
4. দরকারি তথ্যগুলো অনলাইন এপ্লিকেশন পোর্টেলে দিন।
5. সকল ডকুমেন্ট এবং তথ্য দেয়ার পরে ডেডলাইনের ভেতরেই আপনার এপ্লিকেশন প্রাথমিকভাবে অনলাইনে জমা করুন।

অফিশিয়াল ওয়েবসাইট

https://www.boell.de/en/foundation/scholarships

পোস্ট এর ঠিকানা

Heinrich-Böll-Stiftung
Studienwerk
Schumannstr. 8
10117 Berlin
Germany

যেকোন প্রশ্নে যোগাযোগ করুন

Bärbel Karger
Email: [email protected]
Tel.: +49 (0)30 / 28534-400
Fax: +49 (0)30 / 28534-409

ফোন করার অফিশিয়াল জার্মান সময়ঃ সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা। (সোম, মঙ্গল, বৃহস্পতি, শুক্র)


আরো পড়তে পারেনঃ

তথ্যসূত্রঃ boell.de, dw.com, DAAD.de