ইউরোপে আমার অবস্থানের প্রায় দুবছর হয়েছে। চ্যাম্পিয়ন্স লীগ থেকে শুরু করে  বিশ্বকাপ ফুটবলের আবহ সবই দেখেছি।  জার্মানরা মহান জাতি । দুই দুটা বিশ্বযুদ্ধ পাকিয়ে দুনিয়াটা কিভাবে নাড়া দিতে হয় এই সাহসটা এরা ভালই দেখিয়েছে। জাতি হিসেবেও এরা সাহসী। প্রযুক্তি, শিক্ষায়, অর্থনীতিতে এরা কতটা অগ্রগামী তা আর নতুন করে বলার কিছু নেই । স্পষ্টই প্রতীয়মান যে দেশপ্রেম না থাকলে এই জাতি দুইটা বিধ্বংসী যুদ্ধের পর এই অবস্থানে আসতে পারতো না ।

খেলাধুলার প্রসঙ্গে আসি । ফর্মুলা ওয়ান থেকে শুরু করে ফুটবল , হকি যেকোনো খেলায় এদের অবাধ বিচরণ এবং প্রতিটি খেলায় এদের অবস্থান সুসংহত । গত বছর বিশ্বকাপ ফুটবল জ্বরে সমস্ত জার্মানি আচ্ছন্ন  ছিল । জাতীয় পতাকা প্রায় অনেক বাড়ির ব্যালকনি এবং গাড়িতেও দেখা গিয়েছিলো। সবচেয়ে মজার কথা হলো শুধু এতেই এরা ক্ষান্ত হয়নি । জাতীয় পতাকার ছাপওয়ালা স্যান্ডেল থেকে শুরু করে মেয়েদের অন্তর্বাস পর্যন্ত দেদারসে বড় বড় চেইন শপগুলোতে বিক্রি হয়েছিলো।

এই অবস্থা আমাদের দেশে হলে  নিশ্চিত তুলকালাম হয়ে যেত। জাতীয় পতাকা অবমাননা , দেশদ্রোহী,  যুদ্ধপরাধি আরও অনেক ইস্যু চলে আসতো। এই পতাকা অবমাননার ব্যাপারটা নিয়ে আমার জার্মান এক বন্ধুর সাথে কফি খেতে খেতে কদিন আগে কথা হলো। বন্ধুটি খেলাধুলায় আমাদের অবস্থানের কথা জানতে চাইলো। ক্রিকেট নিয়েও বন্ধুটি অবগত। তেমন উল্লেখযোগ্য কিছুই বলতে পারলাম না।

সে যাই হোক , পতাকা অবমাননার আমাদের দেশের গল্প শুনে এখন বন্ধুটি যদি মনে করে “খালি কলসি বাজে বেশি “! তাতেও আমি বেশ অবাক হবো না ।

আরো পড়তে পারেন- 

জার্মানির পুলিশ স্টেশনে একদিন

জার্মান আদব শিক্ষা 🙂

আজব পৃথিবী তার চেয়েও আজিব এই পৃথিবীর মানুষ।

আজব ব্যাপার!