আজকে জার্মানিতে ২০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। ম্যাপে দেখা যাচ্ছে সব চেয়ে বেশী বাডেনউটেনবার্গ আর হামবুর্গ। বাভারিয়াতে কার্ফু দিয়েছে শুনেছি, বাইরে গেলে ২৫ হাজার ইউরো মানে ২৫ লাখ টাকা জরিমানা। সাক্সোনি আর থুরিংগা সব চেয়ে নিচে ছিল গত দুইদিন স্যাক্সোনিতেও অনেক বেড়েছে। আশার কথা মৃত্যু হার কম। একটা কথা বলা উচিৎ যে আমাদের এখানে এতো এতো খাবার জিনিসপত্র সংকট কিন্তু একটা জিনিসের দাম বাড়ে নি। রাস্তাঘাটে মানুষ নেই। এঞ্জেলো মার্কেল বলার পরে বেশীর ভাগ সবাই বাড়িতে থাকছে। যদিও একজন বাঙালী গতকাল বলল বাভারিয়াতে ঘুরে বেড়াচ্ছে, কারণ বাসায় ভাল্লাগে না। ছুটির দিন গুলো ঘুরে বেড়ানোর প্ল্যান। ইউরোপ ট্যুরটা রেস্ট্রিকশন এর জন্য দিতে পারছে না কিন্তু কার্ফু এর ভেতর কিভাবে বাভারিয়াতে ঘুরে বেড়াচ্ছে সেই প্রশ্ন করতে আর ইচ্ছে করে নি।

পাকিস্তানে সরকার ইজতেমা করতে মানা করেছিলো ওরা মানেনি। সরকার শুক্রবার এর জুম্মার নামাজ মানা করেছিলো সেটাও মানেনি। আন্দোলন করেছে বলেছে, ” যে করনা ইহুদি নাসাদের মুসলমানদের উপরে চক্রান্ত। ওদের চক্রান্তে আজকে সৌদি আরবে মক্কা-মদিনা, কাবাঘর আশেপাশে হজ ওমরা বন্ধ। আমরা সেই চক্রান্ত সফল হতে দিতে পারিনা”।

ভারতীয়রা কেউ কেউ প্রচন্ডরকম প্যানিক হয়ে কান্নাকাটি করতে দেখা গেছে গত দুদিন। দু একজন মেয়ে একে তাকে কান্নাকাটি করে জিগ্যেস করছে কিভাবে দেশে ফিরে যাবে। একটা মেয়ে দুদিন আগে কিভাবে জানিনা কেরালা চলে গেছে। মেয়েটাকে জিগ্যেস করেছি বাড়িতে পৌঁছে গেছে কিনা। সরকার কোনরকম কোয়ারেনটাইনে রেখেছে কিনা? না কিছুইনা, বাড়িতে যেতে দিয়েছে।

এয়ারপোর্ট গুলো এই ভাইরাস ছড়ানোর সব চেয়ে বেশী হটস্পট। এখানে জার্মানীতে থেকে গেলে সে যতটা ঝুঁকিতে এয়ারপোর্টে যাওয়া আসা এবং প্লেনে দীর্ঘ সময় অন্যান্যদের সাথে থাকায় তাঁদের ঝুঁকি বেশী। কেননা ফিজি, হাইতি এইসব দ্বীপ গুলোও বাদ নেই, আর এই দেশ গুলোতে বাতাসে ভেসে ভাইরান ছড়ায়নি বিশ্ব ব্যাপি চায়না থেকে শুরু এই কোরনা ভাইরাস বিমান পথে এক দেশ থেকে অন্যদেশের বর্ডার পেরেয়েছে। কোন ভাবে কেউ যদি বাড়িতে যায় আর শরীরে করনা ভাইরাস ঢুকে পড়ে সে তাহলে একজন বাহক এবং সবার আগে সে তার বাড়ির মানুশগুলোকে বিপদে ফেলবে।

ভারতীয় অনেকে ইটালি থেকে দুবাই কাতার গিয়ে সেখানে সাতদিন থেকে দেশে গিয়ে বলেছে যে দুবাই থেকে এসেছে আর দেশে গিয়ে বিয়ে বাড়িতেও গিয়েছে। গতকাল আফ্রিকার দেশ গুলো, বা অন্যান্য দেশে যেগুলো ছিল দুই চার আজকে ২০০+!

ব্রেক্সিট এর জন্য ইংল্যান্ডে কিছু হবে না অনুমান করলেও সেখানেও বাদ নেই। কানাডার প্রধানমন্ত্রীর বৌ এর হয়ে গেছে।

গতকাল পাকিস্তানের ছিল ৫০০ এর কাছাকাছি আজকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে নিশ্চিত করেছে একদিনে ৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশ এবং ভারতের মানুষগুলো এখান থেকে কি শিক্ষা নিতে পারে ? Please be aware than its too late.

এই করনা ভাইরাস কিন্তু জানালা দিয়ে ডেংগু মশার মতো ছড়াবে না। ডেংগু মশার জন্য সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র এবং মশাদের গালাগালি দেওয়া হয়। কোরনা ভাইরাস মশার থেকে ছোট, ব্যক্টেরিয়ার থেকে ছোট। একটি কোষের থেকেও ছোট। কিন্তু কোরনা ভাইরাস এর বাহক কিন্তু মানুষ।

যুদ্ধের সময় প্রচণ্ড গোলাগুলিতে বলা হয় যে যেখানে আছে নড়াচড়া না করে মাথা নিচু করে মাটিতে শুয়ে পড়তে। এখন মানব সভ্যতা যদি নিজেদের রক্ষা করতে চাই উচিৎ যে যেখানে আছে সেখানে নিজেদের কোয়ারেন্টাইন করতে যাতে সে নিজে বাহক হয়ে নিজের সাথে অন্যদের বিপদে না ফেলে। সৃষ্টির সেরা হে মানবজাতি সভ্যতার এতো বড় বিপর্যয়ে তোমরা কি করবে? নিজেদের আলাদা রেখে সভ্যতার এই বিপর্যয় বন্ধ করতে পারবে না? মাত্র দু এক মাসের জন্য?

তা না হলে এর শেষ কোথায় হবে কেউ জানেনা!

বাংলাদেশে এখন এই মূহুর্তে সব চেয়ে নিরাপদে আছে খালেদা জিয়া।তিনি মোটামুটি নিরাপদে কোয়ারেনটাইনে আছেন। এটা বিএনপির জন্য একটা সুখবর কারণ ঘরের বাইরে কেউ নিরাপদ না।