প্রোফাইলঃ

এসএসসি- ৫.০০,
এইচএসসি- ৫.০০
বিএসসি- মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং, (রুয়েট)
সিজিপিএ- ২.৮৪ (পাসিং ইয়ার, ডিসেম্বর ২০১৬)
আইইএলটিএস- ৬.৫ (R-7, L-7.5, S-6.5, W-5.5)
জব এক্সপেরিয়েন্স- প্রায় ২ বছর
যেখানে পড়তে যাচ্ছিঃভার্সিটি- Technische Hochschule Ingolstadt (THI)বিষয়- Msc in Renewable Energy Systems (১.৫ বছর, তিন সেমিস্টার)
টিউশন ফি- ফ্রি
ভিসা ইন্টারভিউ- ২২ সেপ্টেম্বর
পাসপোর্ট কালেকশন মেইল- ১৪ অক্টোবর

এই বছরের জানুয়ারিতে ডিসিশন নেই হাইয়ার স্টাডির জন্য জার্মানিতে চেষ্টা করব, মাত্র ১০/১২ দিনের প্রিপারেশন নিয়ে তাড়াহুড়ো করে আইইএলটিএস দিয়ে স্কোর হয় মাত্র ৬.৫! রাইটিং একবারও প্র্যাকটিস করে না গিয়ে প্রথমবার মূল এক্সামে লিখতে গিয়ে ধরা খেয়ে ৫.৫ আসে এই সেকশনে। তবে রাইটিং’এ ভালো করতে প্র্যাকটিস জরুরী, আমি বেশি বুঝে প্র্যাকটিস না করেই গিয়েছিলাম। যেহেতু ওভারঅল ৬.৫ যথেষ্ট ছিল আমি যে কোর্সগুলোতে এপ্লাই করতে চেয়েছি সেগুলোর জন্য, তাই তেমন সমস্যা হয়নি। আসল সমস্যা ছিল আমার সিজিপিএ। মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং রিলেটেড প্রায় সব কোর্সে জার্মানির ভার্সিটিগুলো কমপক্ষে জার্মান স্কেলে ২.৫ চায়। আমি আমার সিজিপিএ জার্মান স্কেলে কনভার্ট করতে গিয়ে দেখি আসে ২.৭। কিন্তু না, THI থেকে ভিপিডি পাঠানোর পর দেখি ওরা ক্যালকুলেশন করছে ২.৯৪! হিসেব করে দেখলাম ওরা ক্যালকুলেশন করছে সর্বনিম্ন পাসিং গ্রেড ২.২ ধরে, যেহেতু রুয়েটের সর্বনিম্ন পাসিং গ্রেড এটাই। আমি জানতাম ২.০০, যা ভুল ছিল। (আমাদের দেশি সিজিপিএ জার্মান সিজিপিএ’তে কনভার্ট করতে পারবেন এখান থেকে shttps://msingermany.co.in/german-grade-calculator/)

এই ভয়াবহ সিজিপিএ নিয়ে কিভাবে এপ্লাই করব চিন্তা করতে করতে গ্রুপের প্রায় সব পোস্ট, DAAD ওয়েবসাইট ঘেটে প্রায় মুখস্ত করে ফেলছিলাম। উইন্টার সেমিস্টারের জন্য খুঁজে খুঁজে মেকানিকাল রিলেটেড বা আশেপাশ দিয়ে যায়, আমি আবেদন করতে পারব এরকম প্রায় ৭/৮ টা কোর্স খুঁজে পেয়েছিলাম। এই কোর্সগুলোতে কোন সিজিপিএ রিকোয়ারমেন্ট মেনসন করা ছিল না, তাই এগুলোই আমার শেষ ভরসা ছিল। কোর্স ও ডেডলাইন অনুযায়ী আবেদন প্রক্রিয়া শুরু করি, মোটামুটি এপ্রিল ও মে’র মধ্যেই আমি ৮টা কোর্সে আবেদন করা শেষ করে ফেলি। ৩টি কোর্সে ইউনি এসিস্টের মাধ্যমে ও বাকিগুলো সরাসরি পোর্টাল বা হার্ডকপি পাঠাতে হয়েছিল। (হার্ডকপি পাঠানোর জন্য মতিঝিলের Fastexpress BD ভালো সার্ভিস, মাত্র ১২০০ টাকা রাখে, ৩/৪ দিনে পৌছায় যায়) ইউনিএসিস্টের ফি জার্মানিতে থাকা আমার বন্ধু পে করে দিয়েছিল, তাই আমার তেমন কোন ঝামেলা পোহাতে হয় নাই।

জার্মানিতে পড়তে আসতে চান, কিন্তু কম সিজিপিএ’র জন্য সাহসে কুলাচ্ছে না বা দ্বিধায় ভুগছেন তাদের বলব সাহস করে এপ্লাই করে ফেলেন। এপ্লাই করবেন আপনার সাবজেক্ট রিলেটেড, মিনিমাম সিজিপিএ চায় নাই কোন এরকম কোর্সগুলোতে। এক্ষেত্রে ওপেন বা রেস্ট্রিক্টেড এডমিশন যা পান, সেটাতেই এপ্লাই করেন। কোনটাতে হবে, বলা যায় না। এরকম কম করে হলেও ৪/৫ টা পাওয়া যাবে। আবেদনের জন্য ভিপিডি লাগে এমন কোর্সে ডেডলাইন থেকে দেড়-দুই মাস আগে আবেদন করা ভালো। জুলাইয়ের শেষের দিক থেকে আগস্টের শুরুর দিক পর্যন্ত আমার আবেদনের ফলাফল আসতে শুরু করে, টানা ৭ টা কোর্সের ফলাফল নেগেটিভ! তখন ধরেই নিলাম যে, নাহ, এবার হবে না, আবার সামারে এপ্লাই করব। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রজমতে আগস্টের ৭ তারিখে THI থেকে মেইল আসে যে পোর্টালে ফলাফল দেওয়া হয়েছে, চেক করি যেন। চেক করে দেখি এডমিশন লেটার!

রিনিউবল এনার্জি সিস্টেম কোর্সে আবেদন করতে আমার লাগছে, এসএসসি, এইচএসসি, বিএসসি’র সার্টিফিকেট, মার্কশিট, সিভি, ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্স সার্টিফিকেট ও থিসিস রিপোর্ট। ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্স ও থিসিস রিপোর্টের বেলায় আলাদা করে বলি। ওরা বলছিল যে বিএসসি তে মোট ২১০ ইসিটিএস থাকতে হবে আবেদন করতে, যদি তা না থেকে ১৮০ ইসিটিএস থাকতে হবে; বাকি ৩০ ইসিটিএস ইন্ডাস্ট্রি রিলেটেড ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্স থাকলে তা কাভার করবে। আর থিসিস রিপোর্ট সাবমিট করতে হয়েছিল এপ্লিটুড টেস্টের অংশ হিসেবে, যে রিনিয়বল রিলেটেড কিছু কাজ আমি আগে করেছি। থিসিস রিপোর্টেই কাজ হয়েছে, আমার কোন পাবলিকেশন নাই, রিপোর্টই ওরা এক্সেপ্ট করেছে। ওদের চাওয়া ছিল এই রিলেটেড কোন ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্স, প্রজেক্ট বা থিসিস রিপোর্ট, যেকোন কিছু একটা এপ্লিটুড টেস্টের জন্য দেওয়া লাগবে। এই এপ্লিটুড টেস্ট কোন রিটেন বা মৌখিক পরীক্ষা ছিল না, শুধু ডকুমেন্টই চেয়েছিল।

এডমিশন পাওয়ার পর দেখা গেল সুবিধা মতো সময়ে আমি ভিসা ইন্টারভিউ ডেট পাচ্ছি না! যেহেতু আমার ব্লক মানি ম্যানেজ করতে সময় লাগছিল, সেহেতু আরও সমস্যা হচ্ছিল যে, সময় মতো ডেট পেলেও ফেস করতে পারব কি না। শেষ পর্যন্ত ১৭ ই সেপ্টেম্বরের মধ্যে ব্লক মানির কাজ শেষ করতে পেরেছিলাম। সোনালি ব্যাংক ও ফিনতিবাতে একাউন্ট করেছিলাম, মাত্র দুই দিনেই আমি সব কাজ শেষ করতে পেরেছি। (কিভাবে ব্লক একাউন্টের কাজ করবেন, সহজ ও সুন্দর ভাবে বিস্তারিত আছে এখানে, https://www.germanprobashe.com/archives/18319)

২২ সেপ্টেম্বর ভিসা ইন্টারভিউ ছিল, আর আমার ক্লাশ শুরু অক্টোবরের ১ তারিখ থেকে! এনরোলমেন্ট বা ভর্তির শেষ তারিখ অবশ্য ৩০ অক্টোবর। ইন্টারভিউ ডেট থেকে মাত্র ৩৮ দিন সময়। ভিসা অফিসার আমার ডকুমেন্টস নিয়ে চেক করা মাত্র কাউন্টারে ডেকে পাঠায় জিজ্ঞেস করে যে, আপনার ক্লাশ তো অক্টোবরের ১ তারিখে; অবশ্য আমি উত্তর দিতে দিতেই বলে যে, আচ্ছা এনরোলমেন্ট ৩০ পর্যন্ত করা যাবে। কোন ঝামেলা যেন না হয়, আমি দেশ থেকেই এনরোলমেন্ট করে রেখেছিলাম। জার্মানিতে থাকা ফ্রেন্ড ফি পে করে দিছিল। হেলথ ইন্সুরেন্সের যে ডকুমেন্ট চেয়েছিল ওটা ফ্রিতে আমি কোরাকল থেকে নিয়ে নেওয়া যায়। ওটা ওরা এক্সেপ্টও করে। THI তে সুযোগ ছিল ফি ও প্রয়োজনীয় কাগজ পাঠিয়ে দিলে ওরা এনরোলমেন্ট করে নেয়। সব ভার্সিটিতে এই সুযোগ নাই হয়ত।অবশেষে ১৪ই অক্টোবর, মাত্র ২২ দিনে আমার ভিসা ডিসিশন চলে আসে।

আমি আমার এক্সপেরিয়েন্স যতটা সম্ভব গুছিয়ে শেয়ার করছি এই জন্য যে, আমার মতো কম সিজিপিওয়ালারা যেন একটু সাহস পায়। কম সিজিপি’এ নিয়ে যারা এডমিসন পেয়েছে, তাদের পোস্ট ত্থেকে আমিও কিছুটা সাহস ও আশা-ভরসা পেয়েছি। ধন্যবাদ, হাল না ছেড়ে দেওয়া মানুষগুলোকে, অসাধারণ এই গ্রুপটাকে ও হেল্পফুল মানুষগুলোকে।

খুব বেশি জানিনা জার্মানিতে এডমিশন নিয়ে, কিন্তু কারও কিছু জিজ্ঞাসা থাকলে কমেন্টে আমি আমার এক্সপেরিয়েন্স থেকে সাধ্য মতো চেষ্টা করব উত্তর দেওয়ার। ধন্যবাদ।

Anik Islam
October 22 at 6:53 PM