আপনি কি স্টুডেন্ট, আপনার বয়স কি আঠারো বছরের উপরে, আপনি কি অতি অল্প সময়ে অনেক টাকা উপার্জন করতে চান , আপনি কি বড় কম্পানিতে চাকরি করে ফেসবুকের স্ট্যাটাস চেঞ্জ করতে চান তবে Mercedes Benz  আপনাকে খুঁজছে ।

কিন্ত কিভাবে কি শুরু করবেন বুঝতে পারছেন না , তাহলে আজকের লিখা আপনার জন্য।

সতর্কতাবানীঃ নিম্নোক্ত তথ্যসমূহ লেখিকার ২০১৮ সালের Semesterferien এ  Daimler werk: Rastatt এ কাজ করার অভিজ্ঞতার আলোকে লেখা। সুতরাং স্থান , কাল , পাত্রভেদে তথ্যের পরিবর্তন  হইতে পারে। 

Arbeiter des Stuttgarter Automobilherstellers Mercedes-Benz im Daimler Konzern fertigen am 01.02.2011 im Werk Sindelfingen (nahe Stuttgart) Mercedes

Daimler বছরের বিভিন্ন ছুটির সময়ে বিভিন্ন ধরনের Ferienjob offer করে । সাধারনত কাজগুলো Produktion, Logistik, Montage, Oberfläche, Gastronomie এগুলা সেক্টরে  হয়ে থাকে। বিভিন্ন ধরনের কাজ হতে পারে। যেমনঃ গাড়ির সামনের ঈঞ্জিনের পার্টস লাগানো, মেশিন দিয়ে তেল ভরা, দরজা লাগানো, বিভিন্ন টাইপের স্ক্র লাগানো ইত্যাদি। এক কথায় গাড়ির সামনে , পিছনে, ভিতরে , বাইরে, উপরে, নিচের যেকোনো কাজ। Fließband চলে তার উপরে যে যার কাজ ৮ ঘন্টা ধরে করে। নিচের ভিডিওটা দেখলে কিছু ধারনা পাওয়া যাবে। এখানে দেখে সহজ কাজ মনে হলেও ,কাজ কিন্ত কঠিন। তবে ভাগ্য ভাল থাকলে এর চেয়েও সহজ কাজ পাওয়া যায়।

এটা সম্ভবত জার্মানির Highest paid Ferienjob.  কিন্ত টাকা যেমন বেশী , খাটুনি কোন অংশে কম হবে না।মাসিক বেতন ferienarbeiter দের সাধারনত 2560 ইউরো ।

কিভাবে করব চাকরির আবেদন

সরাসরি  Daimler অনলাইন জবপোর্টাল এ আবেদন করতে হবে। নিচের ওয়েবসাইটে Ferienjob লিখে খুঁজলে সব চাকরির অফার দেখাবে। তারপর পছন্দমত যতগুলো খুশি আপ্লাই করলেই হবে।

https://www.daimler.com/karriere/jobsuche/?action=doSearch&audience=&job_location=&jobType=60&jobFOE=

 

Studentenbescheinigung, Arbeitserlaubnis অনেক গুরত্বপূর্ন , এগুলা আবেদনের সময়ই আপ্লোড করে দিতে হবে, Motivationalschreiben ওতোটা গুরত্বপূর্ন না । ৩/৪ লাইন লিখলেও চলে 😉

আবেদনের পর ১ সপ্তাহ থেকে ২/৩ মাসের মধ্যে হ্যা/না উত্তর আসে।

চাকরিটা আমি পেয়ে গেছি বেলা শুনছ 

যদি আসে হ্যা উত্তর তবে আপনাকে অভিনন্দন।এর পরের ধাপে কিভাবে কি করতে হবে সেগুলো ইমেইল এই বিস্তারিত দেয়া থাকে। সাধারনত ৪/৮ সপ্তাহের কাজ দেয়, ওদের সুবিধামত সময়ে দেয় আর নির্দিষ্ট একটা দিনে যেতে বলে Arbeitsvertrag sign করার জন্যে, যেটাকে Personalaufnahme বলে। এই দিন অবশ্যই যেতে হয়।কাজের জামা , জুতা সব এই দিনেই দেয়।

তারপরে কাজের দিন কাজ করতে যেতে হবে। কাজ ২ শিফট হয় এবং প্রতি সপ্তাহে পরিবর্তন হয় মানে এক সপ্তাহ Frühschicht হলে পরের সপ্তাহ  Spätschicht । সাধারনত Frühschicht সকাল 6:00- দুপুর 2:35  , আর Spätschicht দুপুর 2:35- রাত 10:30।  Nightschicht ও কাজ হতে পারে তখন আর শিফট পরিবর্তন হয়না সবদিন একই। যাইহোক,কাজ শুরু করলে সবকিছুই নিজের কাছে পানির মত পরিস্কার হয়ে যাবে।

পরিশেষে বলা যায়,  এ কাজ করলে যত না টাকা পাওয়া যায়, তারচেয়েও বেশি পাওয়া যায় অভিজ্ঞতা। আমি নিশ্চিত হয়ে বলতে পারি কাজ শেষে সাড়া শরীরে ব্যাথা নিয়ে বাড়ি ফিরলেও মুখে আপনার হাসি থাকবেই 😀