অ্যাপ্লিকেশন শেষে অফার লেটার আসার মৌসুম শুরু হয়েছে। কিছুদিন পরই হয়তো ভিসা নিয়ে জার্মানিতে আগমন হবে। কমিউনিটি থেকে অনেক বড় ভাই ছোট ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ তৈরি হবে।

তবে জার্মানিতে আসা মাত্রই নিজের নিরাপত্তার কথা ভুলে গেলে চলবে না। অন্ধভাবে অমুকের ভাই তমুককে বিশ্বাস করে বসলে ‘আম-ছাল’ ‍দুটোই হারিয়ে কান্নাকাটি করা ছাড়া উপায় থাকবে না।

কাউকে বিশ্বাস করতে দোষের কিছু নেই, কিন্তু এরপর নিজে সতর্ক থাকতে হবে। এরকম কিছু বিষয় তুলে ধরা হলো:

১। বাসা ভাড়া: 
কাউকে ট্রাপে ফালানোর সবচেয়ে সহজ উপায়। জার্মানিতে নতুন আসা মাত্র শহরে রেজিস্ট্রেশন বা আনমেলডুং করা জরুরি। যার অন্যতম শর্ত হচ্ছে বৈধভাবে ভাড়া করা বাসার ডকুমেন্টস। অনেক সময় দেখা যায় অমুকের ভাই তমুক ১০টাকা দিয়ে বাসা ভাড়া নেয়। যখন দেখে আশেপাশে কিছু মক্কেল ঘুর ঘুর করছে তখন তার প্রথম চাহিদা থাকে সেই ১০টাকার বাসা ভাড়াকে ১৫ বা ২০ টাকা আদায় করা। তবে মনে রাখা ভালো এই ভাই কিন্তু আপনাকে সিটি রেজিস্ট্রেশন করার মতো কোন ডকুমেন্টস সরবরাহ করতে সক্ষম হবে না। কাজেই যে ভাই হোকনা কেন, আসার আগে আনমেলডুং সহ আছে কিনা তা জেনে বাসা ভাড়া নিবেন। অন্যথায় আপনি প্রতারিত হতে পারেন এটা দিনের আলোর মতো পরিষ্কার।

Image may contain: sky, tree, skyscraper, outdoor and nature

জার্মানিতে অধিকাংশ বাসাই কোন কোম্পানি বা ব্যক্তি মালিকানার হয়। এবং সব ক্ষেত্রেই ব্যাংকে টাকা ট্রান্সফার করে দেওয়ার নিয়ম থাকে। অনেক সময় দেখা যায় খাতিরের ভাই আপনার মাথায় কয়েজ কেজি তেল ঢেলে ভাড়া বাড়িওয়ালা বা প্রতিষ্ঠানকে সরাসরি না পৌছে দিয়ে তার হাতে দিতে অনুরোধ করতে পারে। সেক্ষেত্রে যদি কথা শুনে গলে যান। শিওর আপনি ধরা! কেননা বাড়ি ভাড়া নেওয়ার সময় আপনার তথ্য থাকবে। কোন কারনে সেই খাতিরের ভাই চম্মট দিলে আপনার মাথায় বাজ পড়া ছাড়া কোন উপায় থাকবে না।

২। ইউনিভার্সিটির বড় ভাই:

Image may contain: indoor

এই সমস্যা আপুদের ক্ষেত্রে বেশি ঘটতে পারে। জার্মানিতে অধিকাংশ ইউনিভার্সিটিতে বাডি প্রোগ্রাম নামে একটি জিনিস আছে। যার কাজ হচ্ছে নতুন আসা স্টুডেন্টদের প্রাথমিক ধাপগুলো সঠিকভাবে উতরানোর জন্য ধাপগুলো সম্পর্কে সাহায্য করা। অনেক সময় দেখা যেতে পারে অমুকের ভাই তমুক (অবশ্যই দেশি) বাডি সেজে খাতির জমানোর চেষ্টা করতে পারে। যার প্রধান উদ্দেশ্যই হতে পারে FLIRTING. এবং সময়ে অসময়ে দেখা যেতে পারে সেই শ্রদ্ধেয় ভাই অনেক বায়না করে বসতে পারে। যদিও ঠিক মতো খোঁজ নিলে দেখা যেতে পারে সেই বিশ্ববিদ্যালয়ে হয়তো বাডি প্রোগ্রামই নেই। অথবা যে কোনভাবেই হোক সে আইডি যোগার করে ফেলেছে।

এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে ইউনিভার্সিটির কোর্স পরিচালকের সাথে ইমেইল করে বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে নেওয়া।