আঁতকে গেলেন হুম গা শিউরে উঠার মত একটা খবর,

(এইখানে শুধু জার্মানিতে প্রকাশিত এবং বিশ্বস্ত কিছু পত্রিকার লিঙ্ক দেওয়া হল, এবং যার অনেক কিছু আমরা আমাদের সীমাবদ্ধতার কারনে বাংলায় অনুবাদ করতে পারি নাই, আর এই আর্টিকেল আমাদের জার্মান প্রবাসী বাবা-মা‘ এর জন্য বিশেষ করে লেখা- আমাদের বিশ্বাস উনারা সহ আপনারা সকলে আমাদের অগোচরে হওয়া ভুল ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন, আর ভুল শুধরিয়ে দিতে সহযোগিতা করবেন )

জার্মানির মত উন্নত দেশে, যার কিনা বিশ্বের সবচেয়ে উন্নত নিরাপত্তা ব্যবস্থা সেই দেশে বাচ্চা চুরি / বাচ্চা হারিয়ে যাওয়ার মত খবর রীতিমত উদ্বেগজনক এবং ভয়ঙ্কর। 1

প্রথমে বাচ্চা চুরি/ হারিয়ে যাওয়ার খবর শুনি এক কলিগ থেকে প্রথমে শুনে আমি ও বিশ্বাস করতে পারি নাই। জার্মানিতে হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চুরি অথবা রাস্তা থেকে বাচ্চা ধরে নিয়ে যাওয়া ভাবতে কেমনা জানি লাগে।

আমার কলিগের ভাষ্যমতে পূর্ব ইউরোপের একটা চক্র এই বাচ্চা চুরি করে পূর্ব ইউরোপে বিক্রি করে এবং এই চুরি হওয়া/  নিখোঁজ হওয়া বাচ্চার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ তারা বিক্রি করে অথবা নিজের কুপ্রবৃত্তি চরিতার্থ করার জন্য করে থাকে। এই সব কথা শুনে আসার পর ইন্টারনেটে

verschwinden Kinder, Vermisste Kinder, Kindesentführung, Entführung kinder দিয়ে খোঁজ করি। তারপর খোঁজে পায় তার বিস্তারিত।

পরিসংখ্যান মতে জার্মানিতে আজ পর্যন্ত আনুমানিক ১০০০ বাচ্চা নিখোঁজ যাদের কেউ স্কুল থেকে ফিরার পথে অথবা বাহিরে হাঁটতে যাওয়ার পর আর বাড়ি ফিরে আসে নাই।

জার্মান অফিসিয়াল (ফেডারেল অপরাধ তদন্ত অধিদপ্তর- জার্মান ভাষায় Bundeskriminalamt বা সংক্ষেপে BKA)  ওয়েব সাইট মতে ০৩ মার্চ ১৯৫১ থেকে ০৬ এপ্রিল ২০১৬ অব্ধি ১৭১৪ বাচ্চা নিখোঁজ। তাদের ভাষ্য মতে আজ পর্যন্ত ৭১৭৭ টি বাচ্চা নিখোঁজ হওয়ার খবর তাদের কাছে  নথিবদ্ধ (২০১৪ পর্যন্ত ) হয় যার মধ্যে ৭০১৮ টি তারা নিস্পত্তি করে।

বিস্তারিত (অফিসিয়াল) লিঙ্কঃ

আন্তর্জাতিক শিশু নিখোঁজ দিবস (Internationaler Tag der vermissten Kinder) উপলক্ষে করা বার্লিনের এক অনলাইন খবরের পত্রিকা মতে আজ পর্যন্ত ১৬৬৪ শিশু নিখোঁজ।

বিস্তারিত এইখানে ক্লিক করলে পাবেন

জার্মান এন-টিভি র খবর

রিফিউজি বাচ্চা চুরির খবর (বহুল অলোচিত)

জার্মান অফিসিয়াল সাইটে দেওয়া নিখোঁজ বাচ্চার  ছবি সহ প্রকাশিত তালিকা

আজ পর্যন্ত ফ্রাঙ্কফুর্ট, স্টূটগার্ট হাসপাতাল থেকে সদ্য জন্ম নেওয়া বাচ্চা চুরি/ নিখোঁজ হওয়ার খবর আমরা খোঁজে পায়, নিচে স্টূটগার্ট হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চুরি/ নিখোঁজ হওয়া নিয়ে স্টূটগার্টের অনলাইন খবরের কাগজে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন। পরে বাচ্চাটি খুঁজে পায়।

ফ্রাঙ্কফুর্টের জনপ্রিয় পত্রিকা ফ্রাঙ্কফুর্টার রুন্ডশাউের, হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চুরি হওয়া নিয়ে করা প্রতিবেদন ( ডিসেম্বর ২০১০ সালের)

এই লিঙ্কে জার্মানির প্রথম বাচ্চা নিখোঁজ হওয়া সহ আজ পর্যন্ত কিছু বাচ্চা কিভাবে হারিয়ে যায় তার সারাংশ।

আপনাদের জ্ঞাতার্থে বলে রাখা ভাল ২০০১ সাল থেকে প্রতি বছর ২৫ মে আন্তর্জাতিক শিশু নিখোঁজ দিবস (International Children Missing Day) পালন করা হয়। যেটি সর্ব প্রথম আমেরিকার ৪০ তম প্রেসিডেন্ট রোণাল্ড রিগ্যান জাতীয়ভাবে  ২৫ মে ১৯৮৩ পালন করেন , পরে এটি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করে ২০০১ সালে।

পুরো ইউরোপ জুড়ে বাচ্চা হারানোর/ হারিয়ে যাওয়া বাচ্চাদের -পরিবারকে

সান্ত্বনা, অনুসন্ধান ও সহায়তা সহযোগিতা করা একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের লিঙ্ক নিচে দেওয়া হল।

এই লিঙ্ক এ দেখুন

জার্মানি সহ পৃথিবীর সকল শিশু/ বাচ্চা সুস্থ, সুন্দর, নিরাপধে থাক, স্কুল শেষে নিরবিগ্নে বাড়ি ফিরে যাক প্রতিটা বাচ্চা, উৎকণ্টাগ্রস্থ বাবা মায়ের মলিন মুখে সর্বদা থাকুক এক প্রশান্তির হাসি এই আমাদের প্রত্যাশা।