Boyon Dey Shipon

এখানে কিছু অদ্ভুত প্রাণী দেখা যাবে যাদের আমি বিশ্বাস করি যে পৃথিবী যদি ধ্বংস হওয়া শুরু হয় তবুও এরা এদের জগিং চালিয়ে যাবে! শীত হোক কিংবা ঠাডা পড়া গরম হোক, এরা এদের জগিং ছাড়বেই না। হাড়কাঁপানো শীতেও এই জীবগুলিকে দেখা যাবে জগিং স্যুট পড়ে দুনিয়ার এক মাথা থেকে আরেক মাথায় দৌড়াচ্ছে। এসব ভাবছিলাম আর সাইকেল চালাচ্ছিলাম বাসার পাশের একটা পার্ক দিয়ে।

দেশে থাকতে সাইকেল এতটা চালাইনি তাই কোনো স্কিল রপ্ত করতে পারিনি। এখানে এসে মোটামুটি দু-হাত বাতাসে মেলে ধরে সাইকেল চালাতে পারি(অনেক বড় স্কিল!)। ভাবছিলাম একটু-আধটু বাউলি মারা শিখে ফেলা যায়। এটা ভেবে যেই না প্রফেশনালদের মত সাইকেলের সামনের অংশ আসমানে তুলে ধরবো তখনই দেখি বাঁ-দিকের রাস্তায় পুলিশের গাড়ি পার্ক করা। এরা মূলত সারাদিন টহল দেয়। কখন যে ওরা চিকন করে আপনার পিছনে চলে আসবে আপনি একটু টেরও পাবেন না!
আমার বাউলি মারার ব্যাপারটা ওরা যাতে না বুঝে তাই আমি ভদ্র ছেলের মত সাইকেল চালিয়ে ওদের ক্রস করে একটু সামনে এগিয়ে যাই। ভাবলাম এবার শিল্পচর্চার শুরু করা যায়। কি মনে করে পেছনে একটু তাকিয়েই দেখি পুলিশ দুইটা আমার দিকে তাকিয়ে আছে! 🥺

অন্তরাত্মা বলে উঠলো “বাপধন আসমানে দুই হাত মেলে সাইকেল চালাইতে পারস এইটাই অনেক বড় ব্যাপার, আপাতত সুবোধ তুই ঘরে যা! 😑

পরে আসলে বুঝতে পারছিলাম ওরা কেনো তাকাচ্ছিলো। আমি ভুলবশত ‘নো সাইকেল জোনে’ ঢুকে পড়ছিলাম বাউলি মারার চক্করে। 🤦‍♂️

ওরা যে এনশুল্ডিগুং বলে আমারে থামায় নাই এটাওবা কম কিসের! সাইকেল চালানোর সময় সবসময় খেয়াল রাখা উচিত। এরকম ভুল আমাদের জন্য আসলে কমন। রাস্তার মধ্যে অনেকরকম সাইন থাকে, সেগুলো ধীরেধীরে শিখে নিতে পারলে সমস্যা হবে না আর! ✌