জার্মানিতে কোভিডের সংক্রমণ রোধে লকডাউনে বন্ধ হওয়া জিম গুলো আবার খুলতে শুরু করেছে, আমার মতন যারা জিমে গিয়ে ব্যায়াম করতে পছন্দ করেন এবং এতদিন তাই মন খারাপ ছিল তাদের জন্য শর্ত সাপেক্ষে আবার ব্যায়াম করার সুযোগ ফিরে এসেছে 🥳। এজন্য অনলাইনে টারমিন/এপয়েনমেন্ট নিতে হবে। স্টেইট এবং শহর ভেদে জার্মানির বেশিরভাগ জিমেই তাদের অনলাইন কাস্টমার একাউন্টে ১ ঘন্টার ওয়ার্কআউট স্লট বুকিং চালু করেছে কিংবা করবে। তারপর আধাঘন্টার বিরতি।

জার্মানির হেসেন প্রদেশের ফ্রাংকফুর্ট শহরে অবস্থিত ২৪ ঘন্টা খোলা থাকা যেই জিমে আমি জিম করি তারা প্রায় ১.৫-২ মাস বন্ধ থাকার পর মার্চের ৮ তারিখ থেকে বিভিন্ন শর্তসাপেক্ষে তাদের কার্যক্রম আবার চালু করেছে। যদিও এদের ব্রাঞ্চ পুরো জার্মানিতেই আছে আর স্টুডেন্টদের জন্য বেশ এফোর্ডেবল।

নতুন নিয়ম অনুযায়ী তাদের ১ ঘন্টার স্লট খালি থাকা সাপেক্ষে অনলাইনে আগে থেকেই বুকিং করে ওয়ার্কাউট সেশান শুরু করতে হয়, এক্সাক্ট টাইমে কার্ড পাঞ্চ করে ঢোকা লাগে আবার লগ আউট করা বাধ্যতামূলক। নির্ধারিত সময় এর আগে বাহিরে অপেক্ষা করতে হয়েছে এবং ঢোকার সময় কনফার্মেশান ইমেইল দেখানো লেগেছে। মাস্ক, টাওয়েল, জিম ক্লথিং ব্যবহার এবং ব্যায়াম শেষে ইন্সট্রুমেন্ট ডিসইনফেক্ট করা বাধ্যতামূলক। আপাতত শাওয়ার নেয়া বা ক্লথিং চেঞ্জ এর কোনো অপশন চোখে পরে নাই।

জিম কর্তৃপক্ষ আমাকে জানিয়েছে লাল স্কচটেপ দিয়ে মোড়ানো যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা যাবেনা এবং ম্যাক্সিমাম ৪১ জন প্রতি স্লটে ব্যায়াম করতে পারবে তাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকবে। এটা জার্মানির ফেডারেল গেসুন্ড হাইট মিনিস্টারিয়াম থেকে নির্ধারিত। অন্যান্য ব্রান্ডের জিমগুলোতেও তাই প্রায় একই ধরনের নিয়মকানুন থাকবে বলেই ধরা যায়।

কোভিডের থেকে বাচতে ইমিউন সিস্টেম ঠিক রাখা, মন মেজাজ ভাল রাখতে, বডিবিল্ডিং, হেলথ ফিটনেসের জন্য কিংবা ইনস্ট্রুমেন্ট সহ ব্যায়ামের জন্য জিম আশীর্বাদ স্বরূপ।

অনেকেই জানতে চেয়েছিলেন তাই তথ্যবহুল পোস্টটি লিখলাম, ভাল লাগলে কিংবা উপকারে আসলে অবশ্যই জানাবেন এবং আশা করি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।


সৈয়দ আহমেদ জাকী
১১/০৩/২০২১,
ফ্রাংকফুর্ট আম মাইন, হেসেন, জার্মানি থেকে