যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগের আগে প্রচণ্ড নিম্নমাত্রার frequency উৎপন্ন হয়। এই ধরনের frequency মানব প্রজাতির জ্ঞানের উর্ধ্বে তবে এটা অনুভব করা যায়। এই ধরনের frequency বোঝে মাকড়শা সহ নিম্নপ্রজাতির কিছু কীট পতঙ্গ। প্রাকৃতিক নিয়ম খুবই সহজ, নিম্নপ্রজাতি = নিম্ন frequency । এই ধরনের low frequency বোঝার জন্য Digital Signal Processing নামক এক জটিল ও কৃত্রিম পদ্ধতির ভেতর দিয়ে যেতে হয়।
অল্প কিছুক্ষণের ভেতর আমার প্রেজেন্টেশান শুরু হবে। মাস্টার্স ( advanced IOT and Digitalization )। আজ বুধবার, আমার রাশি ভাল। তবে আমার মনে আছে, কোন এক বুধবার আমার রাশি ভাল ছিল না, আমার এ লেভেলের গ্রেড ৯ এর ম্যাথ পার্ট ২, এর প্রি-টেস্টের রেজাল্ট (interior) publish হচ্ছিল। আমরা wait করছি, টিচার অনেকক্ষণ কথা বললেন। তাঁর মতে এই বার স্মরণ কালের সেরা সহজ প্রশ্ন হয়েছে, যারা ফেইল করবে তাদের ফাইনাল পরীক্ষা থেকে বিরত থাকা করা উচিত। পুরা ক্লাসে সবাই পাস করলো শুধু একজন ছাড়া এবং সেটা আমি। যখন আমি রেজাল্ট জানলাম তখন আমি স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। হাত পায়ে কোন শক্তি পাচ্ছিলাম না। লো প্রেসারের লক্ষণ, খুব উপর থেকে মানুষ হঠাৎ পড়ে গেলে মুক্তভাবে পড়ন্ত বস্তুর ত্বরণের সাথে সে লো প্রেসার উপভোগ করতে পারে। আমি এক জার্মানকে চিনি, উনি সুযোগ পেলেই স্কাই ডাইভ করেন, এর কারণ উনি স্পেসিফিক ভাবে না জানলেও বিষয়টা লো প্রেসার সংক্রান্ত। যদিও বিজ্ঞান বলছে স্কাই ডাইভের কারণে কানের সাইনোসিসের উপরে বিশাল প্রভাব পড়তে পারে। স্পোর্টস মেডিসিন রিপোর্টের একটি পর্যালোচনাতে এসেছে, স্কুবা ডাইভিং এও একই ফল। মজার বিষয় হল, স্কাই ডাইভিং এ প্লেন থেকে জাম্প করার মাত্র ৩/৪ সেকেন্ড পর্যন্ত rapid acceleration থাকে। তার পড়ে acceleration থাকে খুবই সামান্য, প্রায় constant (9.8 m/s-2)। একদল বিজ্ঞানী, যারা প্রায়ই স্কাই ডাইভিং করেন তাদের উপর একটা পরীক্ষা করেছেন, তারা যে স্নায়বিক চরম উত্তেজনা উপভোগ করার জন্য এতো উপর থেকে লাফিয়ে পড়েন, তাদের স্নায়বিক উত্তেজনা ১০ গুণ বেড়ে গেয়েছিল যখন তারা শুনল প্লেনে আগুন লেগেছে, কিছুক্ষণ পরেই তারা সবাই মারা যাবে।
তবে এই ধরনের স্নায়বিক উত্তোলন থেকে বাঁচার উপায়ও আছে, আমি ইন্টারনেটে সার্চ দিয়ে দেখেছি Jack Barkhas নামের এক লোক (psychiatrist) বলেছেন, প্রেসারে মানুষ Dimension হারাতে থাকে, মানুষ থ্রি ডাইমেনসন অনুভব করতে পারে। পানির অনেক প্রেসারে মানুষ ডাইমেনসন হারায়, আস্তে আস্তে যত প্রেসার বাড়তে থাকে মানুষ তত দ্রুত ডাইমেনসন হারাতে থাকে। আমরা যখন জ্ঞান হারাই তখন ডাইমেনসন খুবই ক্ষুদ্র; >০ কিন্তু positive ।
যেমন একটা বিন্দুকে থ্রি ডাইমেনসনেও কল্পনা করা যায়, কিন্তু এর মান শূন্য। প্যারাবলিক ম্যাথের ভাষায় ΔT –>০. এটা ফইনাইট কোন নাম্বার হবে ডেল্টা trans এর মান ০ না হয়ে, খুব অল্প হলেও মানুষ elution এ চলে যেতে পারে (মাইক্রো লেভেল)। Jack Barkhas স্নায়বিক উত্তোলন থেকে বাঁচার বেশ কিছু উপায়ও আলোচনা করেছেন তার Serotonin and Behavior বই এ। স্নায়বিক উত্তোলন অথবা তীব্র উত্তেজনা পরিমাপেরও উপায় আছে। যে কোন কবিতা / সংলাপ চিন্তা করা। যত গুলো ভুল অথবা যত বিলম্বে মনে পড়া উত্তেজনার পরিমাণ তত বেশি।
আমার প্রেজেন্টেশান এর ডাক পড়েছে। আজ বুধবার আমার কোন ভয় নাই। আমি আত্মবিশ্বাসের সাথে দাঁড়ালাম। আমার লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য হল wireless sensor and technology এর নতুন দাড় উন্মোচন করা। (IOt==internet of things এর applied application) এবং সেটাকে আরও জনপ্রিয় করা, দিনশেষে আমরা চাই আরও repayable machine। যন্ত্রের প্রতি নির্ভরতা।
আমার আগের প্রেজেন্টার bakon michen বক্তৃতা দিয়েছে এক ধরনের জামা নিয়ে। ব্যক্তি এটা পড়ে নিজ বাসাতে ঘুমাতে পারবে, এবং ডাক্তার জামার সেন্সরে লগ ইন করে ডাটা পেয়ে যাবে। সেই রেজাল্ট দিয়ে ডাক্তার মেডিসিন প্রেসক্রাইব করবে। গত বছর সামারে সে (bakon) তার Girlfriend এর সাথে এক রাত থাকতে পারেনি, হাসপাতালে intensive tech room এ থাকতে হয়েছে। এবং সে রাতে তার ঘুম কম হয়েছিলো। Mr Bakon প্রেজেন্টেশানে একটু বেশি সময় নিয়েছে। কারণ তার উপস্থাপনায় সামাজিক, শারীরীক মানসিক বিভিন্ন বিষয় উঠে এসেছে। যেমন, সানফান্সিসকোতে এক লোকের হাতে (চিকিৎসা purpose ) একটা electronic screw লাগানো ছিল। ডাক্তার লগ ইন করে ওটা থেকে দরকারি ডাটা পেতেন। কিন্তু ডাক্তার প্রথম ৬ মাস পর আর ডাটা পাচ্ছেন না, কারণ সেটা হ্যাক হয়ে গিয়েছিল। প্রবলেম হল ভুক্তভোগী পুলিশের কাছে গিয়েছিল কিন্তু পুলিশ কেসটা নিতে পারছিলো না (আইনি জটিলতায়)। তবে পুলিশ শেষ পর্যন্ত তার কেসটা নিয়েছে এবং কেসের টাইটেল ছিল- হাতের এক অংশ ইলেক্ট্রনিক ভাবে চুরি। সবাই হাসছে, আমি হাসছি না। এটা হাসাহাসির সময় না, বড় ইম্পর্ট্যান্ট সময়। আমাকে আমার টপিক রিভাইস করতে হবে।
আমার বক্তব্য শুরু হলো, বাস্তবে আমরা প্রচণ্ডভাবে একজন আর একজনের সাথে ইলেক্ট্রনিকলি যুক্ত। … আমার উদ্দেশ্য হল সন্তানসম্ভবা মহিলাদের ভেতর বেশ কিছু ক্যামেরা বসানো হবে। মা তার শিশুকে সব সময় দেখবে । সে যে কোন সময় ছবি তুলে এটা শেয়ার করতে পারবে। ডাক্তার সেটা দেখতে পাবে। আমার আকর্ষণীয় ফিচার হল কোন শিশু ভাল ফিল করলে সরাসরি পোস্ট হয়ে যাবে অমুকের বেবি ফিলিং ওয়েল। শিশু কি রকমের ফিল পছন্দ করে তা জেনে প্রোভাইড করা হবে। মিউজিক শুনলে এবং নাচলে, পোস্ট হবে অমুকের বেবি ফিলিং রক অ্যান্ড dancing down the womb। মজার বিষয় হল শিশুটি তার পার্শ্ববর্তি শিশুর সাথে যোগাযোগ করতে পারবে। এমনকি ফ্রেন্ড রিকোয়েষ্টও পাঠাতে পারবে। তাকে রাজনৈতিক পোস্টেও অংশগ্রহণ করতে দেয়া হবে, যদি শিশু ভাল ফিল করে তবে গুড, না হলে ব্যাড। হিলারি ক্লিনটন এবং ট্রাম্পের বিতর্কে এরাও জানতে পারবে তাদের পছন্দ। এর ভেতর কোনটা সে পিক করবে সেটাও দেখার বিষয়। এক কথায় শিশুরা জাতির ভবিষ্যৎ এবং তাদের মত প্রকাশের অধিকার থাকবে এবং সেটা বেশ ছোট বয়স থেকেই। সে লাইভ টিভি শোতেও হ্যাঁ না ভোটে অংশ নিতে পারবে।
বক্তব্য দেয়ার পর আমার মিশ্র ফিলিং হচ্ছে। আজ বুধবার আমি পুরো কনফিডেন্ট কোন ভয় নাই।
প্রোফেসর Anna Maling -স্ত্রী লিঙ্গ – বয়স ৫২। জন্মসূত্রে আমেরিকান। উঠে দাঁড়িয়েছেন আমার দিকে তাকালেন, হাসলেন। তিনি অল্প কিছু সময় নিলেন এবং বলা শুরু করলেন।
তুমি বিবাহ করেছো ?
-না।
গার্লফ্রেন্ড? বেবি?
-না।
Ok I have two babies, two boys. They are doing PHD from California Tech, আমি জানি এই সময়ের কি ভোগান্তি। তুমি এই অসুস্থ পেসেন্টদের ভেতর ক্যামেরা বসাতে চাও, Infared bimmer with alfa WEP new protocol এগুলো introduce করতে চাও?
আমি বললাম, আমি পেইনলেস ডিভাইসের কথা চিন্তা করছি। আমার প্রোজেক্টের সময় বাড়ালে এটা সম্পর্কে একটা অগ্রগতি আসবে।
প্রোফেসর বললেন “তুমি হৃদয়হীন”!
পুরো ক্লাস থেমে গেছে। গাছের পাতা নড়ছে না, Low frequency এর একটা ঢেউ চারিদিকে ছেয়ে গেছে। আমি নড়তে পারছি না। আস্তে আস্তে এই অবসন্নতা আমাকে ঘিরে ফেলছে। energy concentrated in dimetional crossing point due to pressure, গণিতের ভাষায় ΔT –> ০, আমি প্রাণপণে চাচ্ছি ΔT এর মান যেন কখনো জিরো না হয়। যোগ ব্যায়াম করলে এই অবস্থার উন্নতি হতে পারে। আমার প্রেসার লেভেল মাপার একটা ব্যবস্থা করা দরকার। আমার পছন্দের একটা কবিতা মনে করার চেষ্টা করলাম- “দাঁড়িয়ে(!!) আছে জাতির পিতা সব শিশুদের অন্তরে”।
কবি এইখানে জাতির পিতা বলতে কাকে বোঝাতে চেয়েছেন? আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে? কবি যদি বাঙালি না হন, যেমন কবি যদি কেনিয়ার হন তবে জাতির পিতা বলতে উনি বোঝাবেন নজুমো কেনিয়েত্তা, উনার উপাধি (ওয়া তাইফা ) যার অর্থ “কেনিয়া বাবা “। অথবা কিম গু দক্ষিণ কোরিয়ার জাতির পিতা। কোরিয়ার স্বাধীনতা অর্জনের জন্য দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় কঠোর পরিশ্রমকারীদের ভেতর মিস্টার গু ছিলেন অন্যতম। গু সাহেব জুলাই ১৯৪৮ সালে তখনকার চীনের মন্ত্রী লিউ ইয়ুয়ানকে অস্থির করে তুলেছিলেন। এই ‘গু’ এপ্রিলে ১৯৪৮ সালে কোরিয়া দখল করে নেন। সুতরাং আমরা যেমন বলি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা তেমন গু এর কোরিয়া। আফসোস এই গু এর কোরিয়ায় যাওয়ার জন্য আমাদের সোনার বাংলার ছেলেরা পাগল।
বমি বমি লাগছে। লো প্রেসারের টপ লেভেল, এইখান থেকেও নিজেকে কন্ট্রোল করা যায়। কিভাবে?? Jack Barkhas তার Serotonin and Behavior বই এর সম্ভবত তৃতীয় চ্যাপ্টারে উত্তেজনা বিষয়ক চাপ সামলানোর কথা বলা আছে, আমি বইয়ের ওই অংশটা বহু বার পড়েছি। মহামতি Jack Barkhas কি জানেন মহাবিপদের দিনে তার থিউরি আমি ভুলে বসে আছি।
SAM007-Uni Bremen
উৎসর্গঃ মেহেদি অপু ভাই, কিছু দিন আগে তিনি দক্ষিণ কোরিয়া থেকে পি এইচ ডি করে এসেছেন আমার সাথে গল্প করার পরে (জাতির পিতা বিষয়ক), কোন এক বিচিত্র কারণে তার বিরক্তির সীমানাই।
mm

By Jahid Kabir Himon

এডিটর (Editor): জার্মান প্রবাসে মাস্টার্স in Internet Technologies And Information Systems, Leibniz University Hannover. থাকিঃ বার্লিন, জার্মানিতে।

Leave a Reply