লিখেছেন Arafatul Islam

২০০৮ সালের কথা৷ আমার প্রবাস জীবন শুরু হয় সেবছর৷ একা মানুষ৷ বন শহরে একটি বড় ভবনের ছোট্ট কামরায় নিবাস৷ প্রবাস জীবনের প্রথম চারমাস ছিল অত্যন্ত বিরক্তিকর৷ অনিচ্ছাসত্ত্বেও তখন অনেক কিছুর সঙ্গে মানিয়ে চলতে হয়েছিল৷ সেটা অবশ্য ভিন্ন প্রসঙ্গ৷

সেবছর মে মাসে বনে হাজির হন আমার প্রিয় এক মানুষ৷ আমার মতো একা নন তিনি, বউ-বাচ্চা আছে৷ কিন্তু তারা তখন দেশে৷ আমি যে ভবনে থাকতাম সেটিরই আরেক কামরায় নিবাস গড়লেন তিনি৷ এরপর রাতের পর রাত আড্ডা৷ একসঙ্গে খাওয়াদাওয়া, ঘুড়ে বেড়ানো৷ শুটকির একনিষ্ঠ ভক্ত মানুষটি৷ চমৎকার ইলিশ পোলাও রাঁধতেন তিনি৷

সম্ভবত সেবছরের পহেলা অক্টোবরের কথা৷ মানুষটির জন্মদিন (দোসরা অক্টোবর)৷ আমি সেটা আগেই জানতাম৷ সারাটা দিন আমরা একসঙ্গে কাজ করলাম৷ তিনি আলাদা করে জন্মদিনের কোন ইঙ্গিত দিলেন না৷ আমিও এমন ভাব করলাম, জানি না৷ সন্ধ্যের দিকে দুই ‘ব্যাচেলর’ ঘুরতে গেলাম বাড গোডেসবার্গ৷ সেখানে তাঁর জন্যে উপহার কিনলাম৷ এরপর প্রিয় মানুষটিকে সঙ্গে নিয়ে ঢুকে গেলাম ম্যাকডোনাল্ডসে৷ তিনি তখন যারপরনাই বিস্মিত, খানিকটা অশ্রুসিক্ত৷

আমার সেই প্রিয় মানুষটির নাম সাগর সরওয়ার৷ আজ তাঁর জন্মদিন৷ এই মানুষটি এখন আর পৃথিবীতে নেই৷ মধ্য তিরিশেই মানুষরূপে হায়নার বিষাক্ত ছোবলে সস্ত্রীক পৃথিবী ত্যাগে বাধ্য হয়েছেন তিনি৷

গত ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকায় খুন হন সাংবাদিক দম্পতি Sagar Sarowar এবং Meherun Runi৷ এরপর পেরিয়ে গেছে ২৩৫ দিন৷ অথচ আজও এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত কিংবা জড়িত সন্দেহে কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী৷ বর্তমান সরকারের জন্য এর চেয়ে লজ্জাস্কর আর কি হতে পারে!

আমি সাগর-রুনি’র হত্যাকারীদের বিচার চাই৷ এই বিচার হতেই হবে৷