বিশ্ববিদ্যালয়ের ২য় বা ৩য় বর্ষে একবার এক গেষ্ট টিচার ক্লাস নিতে এসছিলেন ( নামটা মনে পড়ছে না), ক্লাসের শুরুতে তিনি বললেন “আমি কিন্ত জ্ঞানী নই, তোমাদের চেয়ে বেশী জানি তাও না । শুধু পার্থক্য হলো আমি কিছুদিন আগে জেনেছি তোমরা কিছুদিন পর জানবে ! আর আমি জানার সময় যে অভিজ্ঞতা হয়েছিল তা বিনিময় করব তোমাদের সাথে ।”

উনার কথাগুলো আমার খুব মনে ধরেছিল, “Politeness” এর সর্বোচ্চ লেভেল যাকে বলে । শুধুমাত্র প্রকৃত জ্ঞানী না হলে এমন বিনয় দেখানো সম্ভব নয় ।

দুঃখ হলো, এমন বিনয়ী মানুষ আমাদের সমাজে এখন প্রায় বিলুপ্ত । আমাদের চারপাশে এমন অনেক আছে যাদেরকে কিছু জিজ্ঞেস করলে নিজেকে ইশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ভাবেন । আবার অনেকে আছেন যারা নিজেকে নিজে শেয়ার পন্ডিত ভেবে অন্যদের বোকা ভাবেন । আরেক শ্রেণী পাওয়া যাবে যাদের উপকার করলে নূন্যতম ভদ্রতা বজায় রেখে একটা ধন্যবাদ দেয়া তো দূরের কথা বরঞ্চ বিরূপ মন্তব্য করে বসবে । অন্যদিকে উপকার চাইলে অনেকে নিজেদের “মহাজন” ভাবেন । কখন কাকে কি রি-অ্যাকশন দিতে হবে সেই ব্যাপারেও আমরা সচেতন নই । আমরা শোনার আগে বলার চেষ্টা করি, বুঝার আগে প্রতিক্রিয়া দিই, অন্যের মতামত-দ্বিমত কেও মূল্যয়ন করতে আগ্রহী নই । মুলকথা হলো ইংরেজরা আমাদের সব শিখিয়ে দিয়ে গেছেন শুধুমাত্র “বিশুদ্ধ আচরন” শিখিয়ে যেতে পারেন নি ।

জার্মানদের কথায় কথায় ধন্যবাদ দিতে দেখি, রাস্তা না ছিনলে শুধুমাত্র ডানে-বামে বলে দায়িত্ব শেষ করেন না, গন্তব্য পৌছেঁ দিয়ে তারপর কান্ত হল । কোন কথা রাখতে না পারলে সুন্দর একটা হাসি দিয়ে অন্তত সরি বলবে । অন্যের কাজ-কথাকে কোনোভাবেই “ফালতু” মনে করেন না । আর সবকটি ক্ষেত্রেই আমাদের আচরণ যেন উল্টো ।
এই যে মহাপন্ডিতগণ, সব মানুষের সাথে সুন্দর ব্যবহার করে দেখুন ; নিশ্চিত করে বলতে পারি আপনি কখনো ছোট হবেন না । বিনয়ী হোন, উদার হোন; দেখবেন আপনার গ্রহনযোগ্যতা বাড়বে, কখনো কমবে না ।।

ATTITUDE IS EVERYTHING !!