জার্মানিতে পড়াশুনার স্বপ্ন অনেকদিন আগে থেকেই আমার এখনও মনে আছে , সবে মাত্র এইচ এস সি শেষ , বাইরে পড়তে যাবার এক প্রবল ইচ্ছা তখন থেকেই , তখন বিসাগ সম্বন্ধে আমার বিন্দু মাত্র ধারনাই ছিল না , সেইদিন যদি এই  গ্রুপটার দেখা পেতাম , আজকে হয়ত জার্মানি থাকতাম! যাইহোক, এখন এই যাত্রায় একটা অফার লেটার পাই ইউনিভার্সিটি অফ জিগেন থেকে!

বিজ্ঞপ্তিঃ

আমাদের উচ্চশিক্ষা বিষয়ক সেমিনার এবং স্কলারশিপের সকল তথ্য(স্লাইড)

বাংলাদেশে হয়ে গেল আমাদের ৯টি সেমিনার!

আমরা চাই আপনার ইউনিভার্সিটিতেই আসুক আমাদের সেমিনার আপা/ভাই! যদি আপনার ইউনিভার্সিটিতে করতে চান কোন সেমিনার তবে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন! যেকোন প্রশ্ন/সাজেশনের জন্য মেসেজ পাঠানঃ [email protected] বা ফেসবুক পেইজে! ধন্যবাদ।

এতো দিনে বিসাগ থেকে মোটামুটি সবরকম আপডেটই  জানা হয়ে গেছে। নতুন নিয়ম অনুসারে , ভিসার আগেই ব্লক(Blocked Account) এর টাকা জার্মানির কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠান এ পাঠাতে হবে, একটু চিন্তায় ছিলাম কোন ব্যাংক থেকে টাকাটা পাঠানো যাবে। গ্রুপ এর পোস্ট গুলো থেকে যা বুঝতাম, সবাই এই সমস্যাতেই ভুগছে, এরই মধ্যে অনেকই কোন  না কোন ভাবে টাকা পাঠানোর চেষ্টা শুরু করে দিয়েছে।

কীভাবে জার্মানির ডয়েচে ব্যাংকে ব্লক এ্যাকাউন্ট তৈরি করবেন?

আমিও কোমর বেঁধে নেমে যাই মাঠে , প্রথম টার্গেট ছিল ডিবিবিএল ব্যাংক। আমার একটা অ্যাকাউন্ট ওদের সাথে আছে। যেই ভাবা সেই কাজ। আমি উইনটার সেমিস্টার এর জন্য অফার লেটার পাই , তাই সামার এর অনেক পোস্ট গুলো থেকে  সাহায্য পেতাম, কারন আমরা ২য় যারা এই সমস্যা ফেস করছি, তো চলে যাই ডিবিবিএল ধানমণ্ডি শাখায়। সমগ্র ব্যাপারটা বুঝায় বলি যতোটা সহজ ভাষায় বলা যায়, বেশী কিছু বলার দরকার হয় নাই। কারন তারা সামার এ এই কাজটা করেছিল, কিন্তু তারা অতি দুঃখের সাথে আমাকে না করে দিল। তাদের ভাষ্যমতে বাংলাদেশ ব্যাংক এর অনুমতি ছাড়া এক টাকাও তারা বাইরে পাঠাবে না, আর ব্যাংক এর অনুমতি আনতে কমপক্ষে এক মাস সময় লাগতে পারে। কোন কোন ক্ষেত্রে তারও বেশী। এদিকে জার্মান এম্বাসিও তাদের নতুন ভিসা আপানমেনট সিস্টেম চালু করে। এই সিস্টেমএ এখন আগেই নিজে থেকে ডেট বুক করা যাবে। আমি একটু আগেই ডেট বুক করে ফেলেছিলাম। যার জন্য তাড়াহুড়া ছিল অনেক, এই সময় টা সারবক্ষনই গ্রুপ এর পোস্ট গুলোর দিকে নজর থাকতো , কোন ভাবে কেও কি ব্লক এর টাকা পাঠাতে সক্ষম হয়েছে কিনা …

একই রকম /এই রিলেটেড আর্টিকেল পড়তে পারে 

অপারেশন ঢাকা ব্যাংক

ব্লক একাউন্টের কথা – DBBL Bank

2

ঘুরতে ঘুরতে চলে যাই মতিঝিল। প্লান ছিল সবগুলা ব্যাংক একটা একটা ঘুরবো আর ব্লক এর বাপারে ইনফো সংগ্রহ করবো। ব্যাংক অনুসন্ধানের ২য় দফায় ঢাকা ব্যাংক এর ফরেইন এক্সচেঞ্জ ব্রাঞ্চ। ব্রাঞ্চ এ ঢুকেই এক ভাইয়ের কাছ থেকে জানতে পারি কাজটা আসলে আদমজী কোর্ট এড় নীচ তলাতে স্বপ্নযাত্রা ডিপার্টমেন্ট এ করা হয় । সব “খোঁজ দি সার্চ”  নেয়ার পরে আমাকে পজিতিভ ইঙ্গিত দেয়া হয়। মন্ টা একটু হাল্কা লাগছিল। জার্মানির সবথেকে বড় বাধা এখন এই ব্লক। যার সমাধান পেয়ে ভালই লাগছিল। সব কাগজ ২ সেট জমা নিয়ে ঢাকা ব্যাংক আমাকে ১০ দিনের টাইম দেয়। যদিও তারা কোন অ্যাকাউন্ট ওপেন করে নাই। বাংলাদেশ ব্যাংক অনুমতি দিলে তবেই তারা অ্যাকাউন্ট খুলবে। শুরু হয় অপেক্ষার পালা…

একই রকম /এই রিলেটেড আর্টিকেল পড়তে পারে 

কীভাবে জার্মানির ডয়েচে ব্যাংকে ব্লক এ্যাকাউন্ট তৈরি করবেন? (০৮- জুন- ২০১৫)

ব্লকড একাউন্টের জন্য ডয়েচে ব্যাংকের ফর্ম যেভাবে পূরণ করবেন (Deutsche Bank)

ঢাকা ব্যাংকে যেই ডকুমেন্টস গুলো জমা দিয়েছিলাম …

  • জার্মান এম্বাসির আপানমেনট ডেটের ইমেইল কপি
  • অফার লেটার
  • বিস্তারিত পাঠ্যক্রম
  • শিক্ষার্থীদের জন্য জার্মান দূতাবাস নির্দেশ
  • ডয়েচে ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খোলার ফর্মের প্রথম দুটি পৃষ্ঠা
  • ডয়েচে ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট কনফার্মমেশন ডকুমেন্টস
  • পাসপোর্ট কপি
  • আই ই এল টি এস রিপোর্ট ফর্ম
  • সার্টিফিকেট ও মার্ক শিট ( বিবিএ , এইচএসসি , এসএসসি)
  • বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে অনুমতি চেয়ে আবেদনপত্র
  • অঙ্গীকারপত্র

*উপরোক্ত সব ডকুমেন্টস ২ সেট সহ জমা দিয়েছিলাম। শেষের ২ টা অ্যাপ্লিকেশান ফর্ম ঢাকা ব্যাংকই দিয়েছিল…

waiting

একই রকম /এই রিলেটেড আর্টিকেল পড়তে পারে 

ভিসা পাননি ? জেনে নিন ব্লকড একাউন্ট এর টাকা কীভাবে ফেরত আনবেন

কোনো কারণে জার্মানি আসতে পারবেন না? How to withdraw money from your blocked account

অনেক দিন অপেক্ষার পরেও যখন কোন কল পাচ্ছিলাম না ঢাকা ব্যাংক থেকে। হঠাৎ এক আপুর পোস্টে চোখ আটকে যায়। সে এক দিনে জনতা ব্যাংক থেকে টাকা ট্রান্সফার করেছিল। সব ইনফর্মেশন সংগ্রহ করে অনেক চিন্তা করে দেখলাম জনতা ব্যাংক থেকে টাকা পাঠালে কিছু সুবিধা পাওয়া যাবে। খরচ অনেক কম অন্যান্য ব্যাংক এর তুলনায়। সবথেকে বড়কথা টাকাটা খুব দ্রুত পাঠানো যাবে । বেসরকারি ব্যাংক গুলো চার্জ অনেক কাটে অন্য দিকে জনতা ব্যাংক সুইফট এর মাধ্যমে দ্রুত টাকা পাঠায়। চলে যাই জনতা ব্যাংক দিল্কুশা ব্রাঞ্ছের লোকাল অফিসে। সিঁড়ি দিয়ে উঠেই বাম পাশে ম্যানেজার বসেন। বিস্তারিত বললে ম্যানেজার একটু ইতস্তত করতে থাকেন। আগেই এক আপুর থেকে পরামর্শ পেয়েছিলাম ম্যানেজারকে কিছু টাকা ক্যাশ দিতে হবে। ৩০০০ টাকার মত। এর পরে ফর্ম ফিলাপ থেকে শুরু করে সব কাজ ম্যানেজারের সামনে বসেই করা…..

একই রকম /এই রিলেটেড আর্টিকেল পড়তে পারে 

My way to legally transfer Euro 8090 to Block Account:

ব্লকড একাউন্ট নিয়ে ভাবনা! আর না! আর না!! BLOCK account updates 23rd Jan 2015

জনতা ব্যাংকে যেই ডকুমেন্টস (২ সেট) গুলো জমা দিয়েছিলাম …

  • অফার লেটার
  • শিক্ষার্থীদের জন্য জার্মান দূতাবাস নির্দেশ
  • ডয়েচে ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট কনফার্মমেশন ডকুমেন্টস
  • সার্টিফিকেট ও মার্ক শিট ( বিবিএ , এইচএসসি , এসএসসি)
  • পাসপোর্ট কপি
  • এম্বাসির প্রত্যয়িত কাগজ এবং ডয়েচে ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খোলার ফর্ম2

কিছু সহায়ক তথ্যঃ

  • জনতা ব্যাংক থেকে টাকা পাঠাতে হলে , বাংলাদেশের যেকোনো ব্যাংক এ নিজের নামে অ্যাকাউন্ট থাকলেই হবে, শুধু অ্যাকাউন্ট নাম্বার এবং ব্যাংক সুইফট কোড জানলেই হবে,
  • ব্যাংকে টাকা ক্যাশ নিয়ে যেতে হবে, যেদিন জমা দেয়া হয়েছিল আমি তার পরের দিন ডয়েচে ব্যাংক থেকে কনফার্মমেশন পাই যে তারা টাকা পেয়েছে ।
  • জনতা ব্যাংকে ইউরো রেট যা ছিল তাই রেখেছে , ৮০৯০ ইউরো আমার ৮৮ টাকা করে রেখেছিল , সাথে অতিরিক্ত খরচ ছিল ২৫ ইউরো + ২৫০০ টাকা + ২৫০০ টাকা –ম্যানেজার)-অন্যান্য ব্যাংক এর তুলনায় যথেষ্ট কম খরচ..)।

বিঃদ্রঃ ঢাকা ব্যাংক থেকে আমার বাংলাদেশ ব্যাংক কনফার্মমেশন আসতে সময় লেগেছিল ১৫ দিন… আমি তার আগেই জনতা ব্যাংক থেকে খুব সহজেই অল্প সময়ে টাকা পাঠাইয়ে দিয়েছি!

সবার জন্য শুভ কামনা! 🙂

এছাড়া পড়তে পারেনঃ