চুইন-গাম যে একটা মানুষ এত মজা করে ঘন্টার পর ঘন্টা চিবাতে পারে তা এই রাশিয়ান মেয়েটাকে না দেখলে হয়ত অজানাই থাকত,আর জার্মান ওই বুড়ি আসার পর থেকেই দেখছি একটা বই খুলে এমন ভাবে পড়ছে তাতে মনে হলো আজ বিমান উড়াল না দিলেও ও তার কিছু যায় বা আসেনা। পাশে তার কিশোরী কন্যা নাকি নাতনি বুজার উপায় নাই, সে তার আই ফোনের উপর একরকম অত্যাচার চালাচ্ছে শুরু থেকেই দেখছি।  আমার একপাশে বসে থাকা জাপানি ছেলেটা তার চশমা পরা ঘুম ঘুম চেহারায় একটু পর পর ঘড়ি দেখছে, চেহারায় কোনো বিরক্তি নাই যত বিরক্তি তার পাসে বসে থাকা ঘানার ওই মোটা লোকটার চেহারায়! দুনিয়ার চরম বিরক্তি যেন তার চেহারায় ভর করে আসছে! এই যখন অবস্থা, তখন হন্ত-দন্ত হয়ে মাঝ বয়সী এক মহিলা, কি জানি বলতে বলেতে আমর পাশে এসে বসলো। তারপর সে কি বলছিল তা বুঝতে  না পারলেও একটা ওয়ার্ড বুঝলাম Hungry মানে ক্ষুদার্ত। আমি তো অবাক! তাড়াহুড়ো করে খুব ভোরে বাসায় থেকে না খেয়ে বের হয়েছি, অনেক খিদা লাগসে! এই মহিলা তা বুঝতে পারছে ভেবে চেহারা যথা সম্ভব মলিন করে উনার দিকে তাকিয়ে একটা মলিন হাসি দিয়ে  বুঝানোর চেষ্টা করলাম আমি আসলেই ক্ষুদার্ত! মনে মনে ভাবলাম, আহা.. আজ বুঝলাম মেয়েরা মায়ের জাত, কেমন চেহারা দেখেই বুঝে গেছে আমার যে খিদা লাগসে।

কিন্তু কিছুক্ষণ পরই উনার হাতে দেখা টিকেট দেখিয়ে যখন আবার বলে যাচ্ছিল Hungry..Hungry আমি আবিস্কার করলাম আমার খিদা লাগসে কি লাগেনাই তাতে উনি মোটে ও চিন্তিত না, উনি চিন্তায় আসছে ইউরোপের দেশ হাঙ্গেরী(Hungary) যাবার জন্য ! সে ঠিক ঠাক জায়গাতেতে আসছে কিনা তাই হয়ত জানতে চাইসে হাঙ্গেরিয়ান ভাষায় ! আমি তাকে ইশারায় বুঝানোর চেষ্টা করলাম আমি যাব বেলজিয়াম আর এই বিমান বেলজিয়াম হয়ে  হাঙ্গেরী যাবে, কিন্তু কোনো একটা কারণে বিমান ফ্লাই করতে দেরী হচ্ছে আর এইটা ও বুঝলাম আমি আমি ফার্স্ট ফুডের দোকান থেকে কিছু খেয়ে আসি ,তুমি আমার ব্যাগটা একটু দেখো কিন্তু সে কি বুঝলো জানি না, তারাতারি করে তার হ্যান্ড ব্যাগ থেকে কিছু চকলেট বের করে দিতে দিতে কি বলছে তা না বুঝলেও তার অভিবাক্তি এইটা বুঝিয়ে দিচ্ছে, সে হয়ত বলতে চাইছে তোমার খিদা লাগসে ?এই চকলেট গুলা খেয়ে দেখো মজা আছে তোমার ভালো লাগবে । উনার চকলেট গুলা নিতে নিতে ভাবলাম মায়েরা  আসলে এমনই হয়।

ছবি কার্টেসি