জার্মানিতে ব্যবসায় প্রশাসনে পড়াশুনা  নিয়ে আমাদের মধ্যে দুইটা মিথ বহুল প্রচলিত:

১. জার্মানিতে ব্যবসা/ ম্যানেজমেন্টে চাকরি অতটা এভেইলেবল নয়.

২. জার্মানিতে বিজনেস নিয়ে পড়াশুনা করার মতো ভালো ইউনিভার্সিটি নেই।

মূলত এই দুটি ধারণার উপর ভিত্তি করে বাংলাদেশী ছাত্র ছাত্রীরা জার্মানিতে বিজনেস নিয়ে পড়তে তেমন আগ্রহী হয় না। তবে আমার নিজের অভিজ্ঞতায় বলতে পারি উপযোক্ত দুটি ধারণাই ভুলের উপর প্রতিষ্ঠিত।

প্রথমে আসি এক নম্বর ধারণায় যে জার্মানিতে বিজনেস গ্রাজুয়েটদের চাকরি নাই। জার্মানি হচ্ছে পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি (আমেরিকা ও চীনের পরে)। অনেক গুলা মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি আছে যারা জার্মান অরিজিনেটেড (যেমন: Porsche, Siemens, Bosch, BMW)। পৃথিবীর মোটামুটি সব মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলা জার্মানিতে তাদের অপারেশন চালায়। জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্ট ইউরোপের সবচেয়ে বড়ো ফিনান্সিয়াল সেন্টার। এখন এতোগুলা বড়ো বড়ো কোম্পানি তাহলে কে চালায়? তাদের নিশ্চয়ই লক্ষ লক্ষ বিসনেস গ্রাজুয়েট লাগে এইগুলা চালাতে। সুতরাং জার্মানিতে বিসনেস গ্রাজুয়েট দের চাকরি এভেইলেবল না, এইটা সূম্পর্ণ অবান্তর একটা কথা। তবে এই চাকরি গুলা পাবার জন্যে একটা লেভেল পর্যন্ত জার্মান জানা আবশ্যক। কিন্তু এটা কি খুব বড় কোনো অন্তরায়? আপনি জার্মানি আসার আগে জার্মান A1/A2 পর্যন্ত শিখে আসেন। এখানে এসে মাস্টার্সের দুই বছরে বাকিটা ঝালাই করে নিন। মোটামুটি সব ইউনিভার্সিটিতে ফ্রীতে জার্মান ক্লাস করার সুবিধা থাকে। চীন, ভারত, এমনকি পূর্ব ইউরোপ থেকে স্টুডেন্টরা এসে বিজনেসে পড়াশুনা করে ভালো ভালো চাকরি করছে। শুধু বাংলাদেশ থেকেই স্টুডেন্টরা বিজনেসে চাকরি নাই চাকরি নাই করে জার্মানি আসে না।

এখন আসি দুই নম্বর মিথ নিয়ে যে জার্মানি তে ভালো বিজনেস স্কুল নাই। সত্যিকার কথাটা হবে জার্মানিতে হাই র্যাঙ্কিংয়ের বিসনেস স্কুল খুব বেশি নাই। আসলে আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশগুলোর জন্যে পড়াশুনাটা একটা বিশাল ব্যবসা। পড়তে আসো, বিশাল টিউশন ফী দাও। ওরা একশোজনের থেকে টিউশন ফী নেয়, আর পাঁচজনকে স্কলারশিপ দিয়ে ভালো সাজে। ইউনিভার্সিটির র্যাংকিংটা এই ব্যবসারই একটা অংশ। ভালো র্যাংকিংয়ে থাকতে হলে অনেক মানদণ্ড (criteria) মেনে চলতে হয়। টাকা পয়সা খরচের ব্যাপার সেপার আছে, যেটা আসে স্টুডেন্টদের টিউশন ফী থেকে। এখন জার্মান ইউনিভার্সিটি গুলু চলে সরকারের টাকায়। তাই এদের কাছে টাকা খরচ করে ভালো র্যাংকিংয়ে থাকাটা মুখ্য না। এমনিতে পড়ালেখার মান জার্মান ইউনিভার্সিটিগুলাতে বিশ্বের কোনো দেশের থেকেই খারাপ না। অবশ্য এখন জার্মানিতেও কিছু বিজনেস স্কুল মার্কিন স্টাইল ফলো করে [high tuition fee, high ranking, international accreditation]।

এখন সংক্ষেপে বলি কেন জার্মানি আসবেন বিজনেস ডিগ্রী নিতে:

১. প্রচুর চাকরি. এতো ভালো চাকরির বাজার মনে হয় বিশ্বের কোথাও নেই. বিসনেস গ্রাজুয়েটদের বেতন মাশাল্লাহ অনেক ভালো।

২. ফ্রি টিউশন। কিছু ইউনিভার্সিটি অবশ্য টিউশন ফী নেয়, তবে এখানে ব্যবসা তা মুখ্য না, ভালো সার্ভিস দেয়া উদ্দেশ্য। তবে আপনি ফ্রি তে পড়তে চাইলে তেমন ইউনিভার্সিটিও পাবেন। জার্মান ইউনিভার্সিটিগুলার মধ্যে মানের ফারাক খুব বেশি না।

৩. ইংলিশে পড়াশুনা করতে পারবেন।

৪. অনেক ইউনিভার্সিটিতে শুধু IELTS দিয়েই এডমিশন পাওয়া যায়। GMAT/GRE সবক্ষেত্রে এডমিশন এর জন্যে বাধ্যতামূলক না।

৫.চাকরি পাবার পরে Blue Card/PR পাবার সুবর্ণ সুযোগ [কিছুটা এজেন্সী গুলার মতো বললাম]।

এখন বলি কারা আসবেন না জার্মানিতে বিজনেস এ পড়তে:

১. আপনি নতুন ল্যাংগুয়েজে শিখতে চান না। একটু বেশি এফোর্ট যেহেতু দিতে চাচ্ছেন না আপনার জার্মানি আসার দরকার নাই ।

২. আপনার পার্ট টাইম করে টাকা কামানোর প্রবল ইচ্ছা। লিভিং কস্ট তুলতে খুব বেশি পার্ট টাইম করতে হয় না। কিন্তু আপনি ঘন্টায় ১০+ ইউরোর লোভ মামলাতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে আপনার আসলে জার্মানি না আসাই ভালো। রেজাল্ট ভালো না হলে পরে পাস করে ভালো চাকরি পাবেন না। পরে বিপদে পড়বেন।

পরিশিষ্ট: এই লিখাটি মূলত জার্মানিতে ব্যবসায় প্রশাসনে মাস্টার্স এর জন্যে প্রযোজ্য। আমি নিজে MBA করছি Hochschule Pforzheim-এ।  এক সেমিস্টার শেষ করলাম। সবার কাছে দোয়াপ্রার্থী। আমার লিখা পরে একজনও উপকৃত হলে নিজেকে সার্থক মনে করবো। এই লিখা তা যেহেতু কোরান/বাইবেল না, কিছু ভুল/দ্বিমত থাকতেই পারে। এখানে সব তথ্যকে অপ্তবাক্য মনে করার কোনো কারণ নেই। বিশ্বাস করার আগে নিজে যাচাই করে নিন। পরিশেষে কিছুটা দুর্বল বাংলার জন্যে ক্ষমাপ্রার্থী।