আমি উইন্টার সেশন ২০১৭তে Brandenburg University of Technology-Cottbus থেকে Joint Masters in Heritage Conservation and Site Management এর অফার লেটার পেয়েছি। তারপর জার্মান প্রবাসে ব্লগ ও ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে ফরম পূরন বিষয়ক খুটিনাটি বিষয়গুলোজেনে নিজে নিজেই সবকিছু পূরন করে সব কাজ সম্পন্ন করেছি। কিন্তু ইদানিংকালে খেয়াল করলাম গ্রুপের পোষ্টে কিছু মানুষের হেল্প চাওয়া পোষ্টে ইনফরমেশন দিয়ে হেল্প করাতে কিছু মানুষ পার্সোনাল মেসেজে ইনফরমেশন চাচ্ছে। অথছ গ্রুপ রুলসে স্পষ্ট লেখা রয়েছে যে যাকিছু জিজ্ঞেসা করার গ্রুপেই করতে হবে, কাওকে পার্সোনাল মেসেজ দেওয়া যাবেনা। আর এমন সব প্রশ্ন যে আশ্চর্য লাগে এরা জার্মানি গিয়ে টিকবে কিভাবে। আরে ভাই একটু কষ্ট করে ব্লগটা সার্চ করেন না, ৯৯% বিষয়ের উত্তর ওখানেই দেওয়া আছে, আর বাকি যেটুকু হেল্প দরকার তা গ্রুপে জিজ্ঞাসা করলেই উত্তর পাবেন, মেসেজ পাঠানোরতো দরকার নাই।  তাই কিছুটা birokti নিয়েই সবার জন্য নিজের ব্লকড একাউন্ট অভিজ্ঞতা শেয়ার করছি।

একাউন্ট ওপেনিং ফরম পূরণ: বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অফার লেটার পাওয়ার পর প্রথমেই যে কাজটি করতে হবে তা হলো ব্লকড একাউন্ট ফরম পূরণ করে পাঠানো। এই ফরমটি আপনি Deutsch Bank এ website এর নিচের লিঙ্কথেকে ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

https://www.deutsche-bank.de/pk/konto-und-karte/konten-im-ueberblick/internationale-studenten1.html?tp=forms

আর আমার পূরণকৃত ফরমটি দিলাম সকলের বোঝার সুবিধার জন্য। তবে একটা কথা মাথায় রাখবেন, ফরমেযে চারটি সিগনেচার করার জায়গা আছে ওগুলোতে সাইন করবেননা আগেই, এমবাসিতে ফরম পাঠানোর সময় সেখানকার কর্মকর্তার সামনে সিগনেচার দিতে হবে ঐচার জায়গায়।

Deutsche Bank Sparkasse Volksbank ডয়েচে ব্যাংক, স্পারকাসে, ফল্কসব্যাংক ব্লকড একাউন্ট Blocked account German Student Visa জার্মান স্টুডেন্ট ভিসা

এম্বাসিতে এটেস্টেড করে ফরম পাঠানো: ফরম সঠিকভাবে ফিলআপ করে প্রিন্ট করে প্রথমেই চলে যাবেন বনানীর ১০এ নম্বর রোডের ফেডএক্স অফিসে, সেখানে প্রিপেইড এনভেলপ কিনবেন, আমার কাছ থেকে দাম নিয়েছিল ৩৩০০ টাকা। মনে রাখবেন বর্তমানে একমাত্র এই অফিস ছাড়া ফেডএক্সের আর কোন অফিস থেকে প্রিপেইড এনভেলপ দেওয়া হয়না। আপনাকে একটা ট্রাকিং নম্বরযুক্ত রিসিট দিবে যেটা ভালো করে রেখে দিবেন পার্সেল ট্রাকিংয়ের জন্য। রবিবার থেকে বুধবার পর্যন্ত দুপুর ১-১.৩০ এর মধ্যে জার্মান এ্যমবাসি গেটে চলে যাবেন। এ্যমবাসিতে যে ডকুমেন্টগুলো নিয়ে যাবেন তা হলো: ওরিজিনাল পাসপোর্ট, পাসপোর্টের ফটোকপি, ৮৭৯০ ইউরো সমপরিমানের টাকা আছে এমন ব্যাংক একাউন্টের সর্বশেষ স্টেটমেন্ট, বিশ্ববিদ্যালয়ের অফার লেটরের কপি। আমি আমার বাবার একাউন্টে ৯ লাখ টাকার স্টেটমেন্ট দেখিয়েছিলাম। সেখানে এ্যমবাসি কর্মকর্তার সামনে ব্লকড একাউন্ট ফরমের নির্ধারিত চারটা জায়গায় সিগনেচার  করে ১৮০০ টাকা সহ সব কাগজ জমা দিয়ে ফরম জমা দেওয়ার রিসিট নিয়ে চলে আসবেন।

ব্লকড একাউন্টে টাকা পাঠানো: ব্লকড একাউন্ট ওপেনিং ফরম পাঠানোর পর অপেক্ষার পালা শুরু। আমি ফরম এ্যমবাসিতে জমা দিয়েছিলাম ২৮শে মে আর ডয়েচ ব্যাংক থেকে ইমেইলে একাউন্ট ওপেনের কনফারমেশ জানায় ৭ জুন রাতে। ইমেইলে আমার একাউন্ট নাম্বার, ব্রাঞ্চ নাম্বার, ওইঅঘ ও ব্যাংক আইডি নাম্বার জানায়। পরদিন সকালেই আমার বাবাকে নিয়ে চলে যাই বনানী ১১ নাম্বার রোডে ইবিএল এর স্টুডেন্ট সেন্টারে। সেখানে স্টুডেন্ট ফাইল ওপেন ফরম পূরন করি, আমাকে নতুন করে কোন একাউন্ট খুলতে হয়নি কারন আমার ফাইন্যান্সার – আমার বাবার ইবিএল এ একাউন্ট ছিল এবং টাকাটা সেই একাউন্ট থেকেই পাঠাবো। স্টুডেন্ট ফাইল খুলে টাকা পাঠাতে অরিজিনাল পাসপোর্ট, পাসপোর্টের ফটোকপি, ব্লকড একাউন্ট ফরমের কপি, বিশ্ববিদ্যালয়ের অফার লেটারের কপি, সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট ও মার্কশীটের ফটোকপি, ওঊখঞঝ রেজাল্টের ফটোকপি, নিজের এককপি ছবি, ফাইন্যন্সারের এক কপি ছবি ও তার ভোটার আইডি কার্ডের কপি ও ১০০টাকা মূল্যের তিনটি রেভিনিউ স্ট্যাম্প নিয়ে যেতে হয়। সব ডকুমেন্ট ঠিক থাকলে ৩০-৪০মিনিটেই কাজ শেষ হয়ে যায়। EBL এ student file খুলতে ৫৭৫০টাকা  নিয়েছে এবং Euro রেট নিয়েছিল ৯৩.১৭ টাকা। এবার আবার অপেক্ষার পালা ডয়েচ ব্যাংক থেকে টাকা ব্লক হওয়ার কনফারমেশনের জন্য। এর মাঝে একদিন ফেসবুক গ্রুপে দেখি ইবিএল থেকেই একজন ১১ তারিখে টাকা পাঠিয়ে ১৪ তারিখেই ডয়েচ ব্যাংক থেকে কনফারমেশন পায় আর আমি ৮ তারিখে একই ব্যাংক থেকে পাঠিয়েও এখনও পেলামনা! ব্যাস, ডয়েচ ব্যাংকের ফেসবুক পেজেমেসেজ পাঠালাম, তারা সাথে সাথে রিপ্লাই দিয়ে জানালো ১-২ দিনের মাঝেই পেয়ে যাবো। ঠিক তার পরদিন ১৫ জুন ডয়েচ ব্যাংকের টাকা ব্লকের কনফারমেশন পাই।
এইযে প্রসেসগুলো তার কোনটাই কিন্তু অন্যকেও করে দেয়নাই। জার্মান প্রবাসে ব্লগ আর জার্মান প্রবাসের ফেসবুকপেজ থেকে হেল্প নিয়ে সম্পন্ন করেছি। কাওকে কোন মেসেজ ও দিতে হয়নাই। তাই প্রথমে নিজে একটু স্টাডি করে নেন, নিজেই সব পারবেন।


আরো পড়তে পারেনঃ