অস্ট্রেলিয়ায় কিভাবে Apply করবেন? কি কি দরকার?

দুঃখিত, অনেক দেরি হয়ে গেল । নিজের মাস্টার্সের রেজাল্ট, থিসিস, ব্যক্তিগত কারনে, ব্লা ব্লা অন্যান্য কারনে অনেক দেরি হয়ে গেছে । যা হোক আজকের পর্বে থাকবে কিভাবে ‍Apply করবেন? Apply করার জন্য কি কি দরকার?

শুরু করার আগে এই লেখাটি তাদের জন্য যারা স্কলারশিপ নিয়ে রিসার্চ এবং উচ্চশিক্ষা করবেন তাদের জন্য, যারা সেল্ফ ফান্ডিংয়ে পড়তে আসবেন তাদের জন্য নয়। শুরু করার আগে কিছু Common Faqs –

১. আমাকে কি স্কলারশিপ এবং এডমিশনের জন্য আলাদাভাবে অ্যাপ্লাই করতে হবে?

উত্তর: না । এডমিশনের জন্য অ্যাপ্লাই মানে আসলে স্কলারশিপের জন্য অ্যাপ্লাই করা। এডমিশনের ফরমে উল্লেখ থাকে, আপনি কি কি স্কলারশিপের জন্য অ্যাপ্লাই করছেন।

২.  কিভাবে অ্যাপ্লাই করবো?

উত্তর: অ্যাপ্লাইটা সম্পূর্ণ অনলাইনভিত্তিক । তাই অ্যাপ্লাইটা Deadline দেখে এর আগে করলেও হবে। এটা এমন কিছু না যে আগে আসলে আগে পাবেন।

যা হোক, শুরু করি মূলপর্ব । অ্যাপ্লাই করার জন্য কি কি অত্যবশ্যকীয় । ট্রান্সক্রিপ্ট, সার্টিফিকেট, Research Proposal, Proof of English, C.V ।

আসি এইসব বিষয়ে কমন প্রশ্ন:

১. আমার ডিগ্রি সম্পূর্ণ হয় নি কিংবা সার্টিফিকেট ছাড়া আবেদন করতে পারবো?

উত্তর: পারবেন । আপনি তখন কবে আপনার ডিগ্রি সম্পূর্ণ হবে তা উল্লেখ করবেন। আপনাকে তখন যে যে সেমিস্টারগুলোর রেজাল্ট হয়েছে তা ডকুমেন্ট হিসেবে আপলোড করতে হবে। যদি আপনার প্রোফাইলের কারনে স্কলারশিপ হয়, পরবর্তীতে ওরা ওগুলো চাইবে । তখন আপলোড করবেন।

২. Research Proposal: এই বিষয় নিয়ে আমাকে সবসময় বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। প্রশ্ণ আসে ভাই প্রোপোজাল কি নিয়ে লিখবো, কেমন লিখবো, কখন লিখবো। এটা নিয়ে বিস্তারিত বলি:

প্রফেসর যখন আপনার ইমেইলের পজিটিভ রিপ্লে দিবে, তখন সে আপনার কাছ থেকে প্রোপোজাল চাইবে। প্রোপোজালের জন্য আপনি তাকে জিজ্ঞেস করবেন তার কোন পছন্দের টপিকস আছে কি না । যদি উনি কোন টপিকস দেন তাহলে আপনি ওনার প্রোফাইল ঘুরে দেখবেন, ওই টপিকসের কোন বিষয় নিয়ে উনি কাজ করছেন। তারপর নেট থেকে ৪-৫টা পেপার ঘেটেঘুটে ১-২ পেজের মধ্যে লিখবেন। তাতে থাকবে ব্যাকগ্রাউন্ড, কেন কাজটি করছেন, কিভাবে করবেন, সময়ের একটা চার্ট, ৪-৫টি Renowned Reference। এবার আসি সত্য কথায়। ভাই রিসার্চ প্রোপোজাল একটা ফরমালিটি । এটা পবিত্র কুরআন শরীফ অথবা হাদীস নহে। দেখবেন আপনি যা দিয়েছেন, যখন কাজ করবেন তার সাথে রিসার্চ প্রোপোজালের কোন মিল নেই । আর আগে থেকে যদি আপনি রিসার্চ এর আউটপুট জানতেন তাহলে তো ভাই আপনি আইনস্টাইন হয়ে যেতেন। তাই মনে রাখবেন এটা শুধু একটা ফরমালিটি। এটা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার দরকার নেই। আর এক রিসার্চ প্রোপাজাল দিয়ে একের অধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ‍অ্যাপ্লাই করা যায়।

৩. Proof of English: ইংরেজীর প্রুফ হিসেবে আইএলটিএস/টোফেল এগুলার স্কোর দিতে হবে । যদি না থাকে, আপনার Medium of Instruction এর সার্টিফিকেট দিয়ে আবেদন করেন । আগেও বলছি, স্কলারশিপের ক্ষেত্রে English proof document এর কোন ভূমিকা নেই। এটা Admission Procedure মাত্র। আপনার স্কলারশিপ হলে ওরা পরে আপনার থেকে স্কোর চাইবে । তাও ৬.৫। Each band not less than 6 ।

৪. সিভি: সিভি চেষ্টা করুন ২ পেজের মধ্যে রাখতে । উর্ধ্বে তিন পেজ । মনে রাখবেন C.V means Curriculum Vitae । তাই দয়া করে একাডেমিক তথ্যের পরিবর্তে অপ্রাসঙ্গিক তথ্য দিয়ে ভরপুর করবেন না । শুধুই একাডেমিক Information। আপনার রেজাল্ট, পাবলিকেশন, প্রজেক্ট, ট্রেনিং, Special Software এ Competency ইত্যাদি।

আজকের জন্য থামি। অ্যাপ্লাই শেষে সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করুন। আমার চোখের সামনে দেখেছি অনেককে খারাপ প্রোফাইল নিয়ে ভালো স্কলারশিপ পেতে আর ভালো প্রোফাইল নিয়ে ব্যর্থ হতে । যা হোক, ষষ্ঠ পর্বে থাকবে উচ্চশিক্ষায় গণিত এবং সপ্তম পর্বে উচ্চশিক্ষায় আমার কিভাবে পদাপর্ণ ।

পরিচয়ে,

সায়েদুল মোরসালিন

Ex-graduate Research Assistant (MRes)

Macquarie University

Waiting for PhD Enrollment