অভিযুক্ত ব্যাক্তি র‍্যাপিং চার্জ অনুমোদিত রেট ৩০০ টাকা থেকে ২০০ টাকা বেশী নিয়েছেন…এ জন্য ২ বছর জেল? না, এ জন্য ৫০০০ টাকা জরিমানা। ওজন প্রতারণার নামে ২ হাজার টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করছেন.. এজন্য ২ বছর জেল? হা..তবে ব্যাখ্যা প্রয়োজন। তার স্বীকারোক্তি এবং বিভিন্ন সময় যাত্রিদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে অপরাধের গুরুত্বটা এরকম…

সূত্রঃ Magistrates, All Airports of Bangladesh

অনেকদিন ধরে আমরা যাত্রিদের কাছ থেকে অভিযোগ শুনে আসছি যে, একটা চক্র ওজন জালিয়াতির মাধ্যমে যোগসাজশীভাবে প্রতারণা করে যাচ্ছে। ধরুন, যাত্রির অতিরিক্ত ২০ কেজি মালের জন্য এয়ারলাইন্সকে ২৫ হাজার টাকা চার্জ দিতে হত। কিন্তু এ চক্রের প্রলোভনে ১০ হাজারের বিনিময়ে কিভাবে যেন যোগসাজশী কারসাজি করে বুকিং করিয়ে দিচ্ছে। এতে যাত্রির হাতে কোনরূপ রশিদ দেয়া হয়না। সমস্যা হয় কোথায়?

যাত্রি যখন ডেস্টিনেশনে যায়, বিশেষ করে আমেরিকা, ইউরোপিয়ান কানট্রিগুলোর এয়ারপোর্টে তাকে অতিরিক্ত মালের জন্য কড়ায় গন্ডায় পেমেন্ট দিয়ে ব্যাগ ছাড়াতে হয়। কারণ অরিজিন এয়ারপোর্ট থেকে প্রতিটি ব্যাগের ওয়েট-রেকর্ড ডেস্টিনেশনে প্রেরণ করা হয়। আবার টোটাল কার্গো ওয়েটেরও রেকর্ড থাকে। স্বাভাবিকভাবে দুই রেকর্ডের গড়মিলের কারণে সেখানকার কতৃপক্ষ রেন্ডম ব্যাগ চেক করে এবং ওভার ওয়েট চার্জ নিয়েই ব্যাগ রিলিজ করে।

এতে করে যাত্রিকে একদিকে যেমন আর্থিকভাবে বড় ক্ষতির সন্মুখীন হতে হয়, অন্যদিকে মান-সম্মানের উপর আঘাতও সহ্য করতে হয়। সর্বোপরি দেশের ভাবমুর্তিও ক্ষুন্ন হয়। সুতরাং অপরাধের গুরুত্ব অনেক বেশি।

এ চক্রটিকে অনেকদিন ধরে আমরা ধরার চেষ্টা করিছ, পারি নাই। তাই এদের ধূর্ততার মাত্রা সহজেই অনুমেয়। আজকের প্রথম কেইস হিসেবে আশা করি সাজাটা অবশ্যই ডেটারেন্স ক্রিয়েট করবে এবং অন্যরা নিষ্ক্রিয় হবে। ধন্যবাদ।